ভারতকে হুঙ্কার রাবাদার

দক্ষিণ আফ্রিকার অল্পবয়সী রাবাদা স্বল্প টেস্টের অভিজ্ঞতা পুঁজি করেই দখল করেছেন শীর্ষস্থান।সেই কাগিসো রাবাদার দেশ দক্ষিণ আফ্রিকায় সফরে যায় ভারত।র‌্যাঙ্কিংয়ের এক নম্বর থাকা কোহলিদের বিপক্ষে এক ম্যাচ হাতে রেখেই  টানা দুই জয়ে টেস্ট সিরিজ জিতে নিয়েছে প্রোটিয়ারা। তবে ওরা এখানেই থামতে চায় না। লক্ষ্য প্রতিপক্ষকে ৩-০তে হোয়াইটওয়াশ করা। এমন হুমকিই দিয়েছেন তরুণ রাবাদা।

 গত ২৫ বছরে দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে কখনই টেস্ট সিরিজ জিততে পারেনি ভারত।যেহেতু দলটি কোহলির নেতৃত্বে দুর্দান্ত খেলছে।হয়ত এবার হিসাব-নিকাশ বদলাতে পারে। বদলাতে পারবে ২৫ বছরের ইতিহাস । কিন্তু বাস্তবে তার কিছুই হয়নি। প্রথম দুটি টেস্টে ফ্যাফ ডুপ্লেসিসদের কাছে পাত্তাই পায়নি সফরকারীরা। ৩-০তে হোয়াইটওয়াশের লজ্জা এড়াতে বুধবার জোহানেসবার্গে শুরু হতে যাওয়া শেষ ম্যাচটা জিততেই হবে কোহলিদের।

রাবাদা বলেন, ‘আমরা প্রতিটি ম্যাচেই জিততে চাই। যখনই খেলতে নামি, এছাড়া অন্য কিছু ভাবি না। সিরিজটা ৩-০ করতে চাই।’ ঘরের মাটিতে পেস আক্রমণ দিয়ে প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করছে দক্ষিণ আফ্রিকা। একইভাবে ভারতীয় পেস আক্রমণ সামলাতেও ঝামেলায় পড়েছেন প্রোটিয়া ব্যাটসম্যানরা। রাবাদা বলেন, ‘ওদের আক্রমণকে সম্মান জানিয়েই বলছি, পেস বোলিং কিভাবে খেলতে হয় তা আমাদের ভালই জানা আছে।’ দুর্ধর্ষ কৃষ্ণাঙ্গ এই পেসার মনে করেন, ভারতীয় দল খুব বেশি মাত্রায় বিরাট কোহালির ওপর নির্ভরশীল, ‘আমার মনে হয়, বিরাটের ওপর ওরা খুব বেশি মাত্রায় নির্ভরশীল। তবে আমরাও দু’তিনজন ক্রিকেটারের ওপর একটু বেশি নির্ভর করে থাকি। আমি বলছি না যে, ভারতের আর কোন দারুণ ক্রিকেটার নেই। কিন্তু এটা ঠিক যে ওদের হয়ে বেশিরভাগ রান কোহলিই করছে। তাই কোহলি আউট হলে দলও চাপে পড়ছে। ’

দক্ষিণ আফ্রিকায় খেলতে আসার আগে ভারতের প্রস্তুতিটা মোটেই ভালো হয়নি বলে জানা যায়। রাবাদাকে এই নিয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ‘আমরা জানি না ভারত কেমন প্রস্তুতি নিয়েছে। সেটা দেখার কাজ আমাদের নয়। আমরা শুধু একটা ব্যাপার নিয়েই চিন্তা করতে পারি। সেটা হলো কিভাবে ভারতকে আউট করতে হবে।’ পরের টেস্ট ওয়ান্ডারার্সে। যা নিয়ে রাবাদার বক্তব্য, ‘ওয়ান্ডারার্সে বল করতে ফাস্ট বোলাররা সবাই মুখিয়ে আছে। এই পিচে পেস, বাউন্স, মুভমেন্ট সবই আছে। তাই পেসাররা এখানে সবসময় বল করতে চায়।’ ভারতীয় পেসারদের নিয়ে রাবাদার বিশ্লেষণ, ‘যশপ্রিতা খুবই ভাল বোলার। ওতো ভারতের হয়ে বোলিং ওপেনও করছে। এছাড়া মোহাম্মদ শামি অভিজ্ঞ বোলার। ওর গতিও খুব ভাল। ভুবনেশ্বর কুমার আছে। কেপ টাউনে সে আমাদের সমস্যায় ফেলেছিল। উমেশ যাদবও ভাল। সবমিলিয়ে ভারতীয় পেস বোলিংয়ের ভবিষ্যত উজ্জ্বল।’

অন্যদিকে, যখন চরমভাবে কোহলির নেতৃত্বে টিম ইন্ডিয়া আসহায় আত্মসমর্পণ করছে ঠিক তখনি পাশে দাঁড়িছেন সাবেক টেস্ট অধিনায়ক  মহেন্দ্র সিং ধোনি, ‘আপনারা এই সিরিজ হারের মধ্যে থেকে ইতিবাচক ব্যাপারগুলো দেখুন। টেস্ট ম্যাচে জিততে হলে অবশ্যই প্রতিপক্ষকে অলআউট করতে হয়। আমরা কিন্তু দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রথম দুটি টেস্টে ২০টি করে উইকেট নিয়েছিলাম। এটা বড় একটা ইতিবাচক দিক। এর অর্থ হলো আমরা ঠিক রাস্তায় আছি। একবার ব্যাটসম্যানরা রান করতে পারলেই জয়ের জায়গায় পৌঁছে যাব।’

x

Check Also

শেষ ম্যাচে বিকেলে মাঠে নামবে বাংলাদেশ

ক্রিকেট বাংলাদেশ-শ্রীলংকা দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি সরাসরি, বিকাল ৫টা বিটিভি ও গাজী টিভি দক্ষিণ আফ্রিকা-ভারত প্রথম টি-টোয়েন্টি ...