মুসলিম হলে হাজী মোস্তফা বেগম স্মৃতি বৃত্তি পরীক্ষার পুরস্কার বিতরণী সভায় বক্তারা মেধাবী শিক্ষার্থীরা শিক্ষার উন্নয়নের মাধ্যমে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে

এতিহ্যবাহী হাজী মোস্তফা বেগম স্মৃতি বৃত্তি পরীক্ষার পুরস্কার বিতরনী সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্টান ও পিঠা উৎসব ১২ জানুয়ারি ২০১৮ দুপুরে চট্টগ্রাম মুসলিম হলে হাজী মোস্তফা বেগম ফাউণ্ডেশনের চেয়ারম্যান বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী ও শিক্ষাবিদ ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ হোসেন মুরাদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট শিল্পপতি, শিক্ষানুরাগী, ডায়মণ্ড সিমেন্ট লি: পরিচালক আলহাজ লায়ন হাকিম আলী। প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অধ্যক্ষ ড. মোহাম্মদ সানাউল্লাহ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম ইতিহাস চর্চা কেন্দ্রের সভাপতি সোহেল মুহাম্মদ ফখরুদ-দীন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের প্রখ্যাত লেখক ও ইতিহাসবিদ ড. দেবব্রত দেবরায়, চট্টগ্রাম নাগরিক ফোরামের চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার মনোয়ার হোসেন, অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী, আইনবিদ ড. মোহাম্মদ সেলিম উদ্দিন খান, ভারতের ত্রিপুরা আকাশ বানীর প্রখ্যাত সংগীত শিল্পী শ্রীমতি স্বর্নিমা রায়, বিশিষ্ট ব্যাংকার দুলাল কান্তি বডুয়া, প্রাক্তন পুলিশের এডিসি বীরমুক্তিযোদ্ধা কবি জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী, বিশিষ্ট লেখক ও চট্টগ্রাম নাগরিক ফোরামের মহাসচিব কামাল উদ্দিন, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আহসানুল কবির, সাংবাদিক একেএম আবু ইউসুফ, সাংবাদিক আবদুল মান্নান, আনন্দ মাল্টিমিডিয়া ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের অধ্যক্ষ মোঃ ইউনুস কুতুবী, চট্টগ্রাম নটরডেম স্কুল এন্ড কলেজের উপাধ্যক্ষ আবুল কাসেম, কধুরখীল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বাবুল কান্তি দাশ, ডা. মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন,অমর কান্তি দত্ত, মিসেস ফারজানা নাসরিন, সদস্য সচিব রাজিব দত্ত প্রমুখ। সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডায়মণ্ড সিমেন্ট লি: পরিচালক আলহাজ লায়ন হাকিম আলী বলেছেন, মেধাবী শিক্ষার্থীরা শিক্ষার উন্নয়নের মাধ্যমে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে। আমাদের এই প্রজন্মের মেধাবী শিক্ষার্থীরা আধুনিক পৃথিবীর সাথে তাল মিলিয়ে যুগোপোযুগী শিক্ষা অর্জনের মাধ্যমে বাঙালী জাতির ইতিহাসকে বিশ্ব দরবারে তুলে ধরবেন। সেক্ষেত্রে শিক্ষকদের পাশাপাশি অভিভাবকদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে হবে। স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসায় আমাদের ছেলে মেয়েরা কি পড়ছে, কি করছে তা নজর রাখতে হবে। শিক্ষার্থীরা যেন বিপদ গামী না হয় সেই বিষয়ে নজর দেওয়া জরুরী। তিনি আরো বলেন, মোস্তফা বেগম স্মৃতি বৃত্তি পরীক্ষাটি মায়ের প্রতি সম্মান ও মর্যাদার প্রতীক। হাজী মোস্তফা বেগম ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে ইঞ্জিনিয়ার হোসেন মুরাদ সাহেব তাঁর প্রয়াত মাতার সমাজ কর্ম ও শিক্ষা বিস্তারের আলোকিত পথকে ধরে রেখেছেন। এই ধরনের কর্মকান্ড বাঙালীর প্রতিটি ঘরে হওয়া উচিত। এই প্রজন্মের সকলকে মা-বাবার মর্যাদা ও পারিবারিক শিক্ষার জন্য এই বৃত্তি প্রদান একটি নতুন উদাহরণ। আমাদের সকলের উচিত জাতিকে শিক্ষিত করে ভাল নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে শিক্ষা বিষয়ক এই ধরনের কর্মকান্ডে অংশগ্রহণ করা ও সহযোগিতা করা। হাজী মোস্তফা বেগম স্মৃতি বৃত্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন চট্টগ্রাম মহানগর ও চট্টগ্রাম জেলার পটিয়া, কর্ণফুলী উপজেলা, বোয়ালখালী, রাউজান, হাটহাজারী সহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বার শতাধিক ছাত্র-ছাত্রী। এদের মধ্যে থেকে ২৮০ জন উত্তীর্ণ ছাত্র-ছাত্রীকে সম্মাননা সনদ, ক্রেষ্ট, উপহার সামগ্রী ও নগদ অর্থ প্রদান করা হয়। সভাশেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও পিঠা উৎসব অনুষ্ঠিত হয়।

x

Check Also

চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন হাসপাতালে সেবা পক্ষ শুরু

সুলভ ও সাশ্রয়ী মূল্যে আর্ন্তজাতিক মানের স্বাস্থ্য সেবা জনগণের দূরগৌঁড়ায় পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যকে সামনে রেখে ...