জমির হুকুম দখলই ৩৯নং ওয়ার্ডের প্রধান আতংক — সুজন বুধবার সন্ধ্যায় ৩৯নং দক্ষিণ হালিশহর ওয়ার্ড এমপিবি গেইট সংলগ্ন ময়দানে মতবিনিময় সভা

নগরীর বিভিন্ন এলাকায় নানাবিধ নাগরিক সমস্যা চিহ্নিত করন এবং তা থেকে পরিত্রানের লক্ষ্যে কর্মপন্থা নির্ধারনের জন্য জনদূর্ভোগ লাঘবে জনতার ঐক্য চাই নাগরিক উদ্যোগ শীর্ষক এক মতবিনিময় সভা ৬ ডিসেম্বর বুধবার সন্ধ্যায় ৩৯নং দক্ষিণ হালিশহর ওয়ার্ড এমপিবি গেইট সংলগ্ন ময়দানে অনুষ্ঠিত হয়।

বিশিষ্ট সমাজসেবক মোঃ মহসিন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আলহাজ্ব খোরশেদ আলম সুজন।

সভায় প্রধান অতিথি আলহাজ্ব খোরশেদ আলম সুজন বলেন, জমির হুকুম দখলই ৩৯নং ওয়ার্ডের প্রধান আতংক। বন্দর, ইপিজেড, নৌবাহিনীসহ বিভিন্ন সরকারী, বেসরকারী ও স্বায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠানের অবকাঠামো বিনির্মানে এই ওয়ার্ডের ভূসম্পত্তি বারবার অধিগ্রহন করা হয়। এই অধিগ্রহনের কারণে এই ওয়ার্ডের মানুষ বিভিন্ন জায়গায় মাইগ্রেশন করতে বাধ্য হয় একাধিকবার। ফলতঃ এই ওয়ার্ডের জনগনের পারিবারিক ও সামাজিক যুৎবদ্ধতা ভেঙ্গেঁ গেছে। এখনও এই ওয়ার্ডের মানুষ রাতে ঘুম যায় হুুকুম দখলের আতংক নিয়ে। এই এলাকার জনগনের ভূসম্পত্তিতে চট্টগ্রাম বন্দরের এম.পি.বি, সি.ই.পি.জেড, নৌবাহিনী বি.এন ঈশাখাঁসহ গুরুত্বপূর্ন অর্থনৈতিক ও প্রতিরক্ষা স্থাপনা। এখানে হাজার হাজার লোকের কর্মসংস্থান হয়েছে। শুধুই যাদের ভূসম্পত্তির উপর এমন স্থাপনা তাদের জন্য এসব প্রতিষ্ঠানে চাকুরী কিংবা ব্যবসার সকল দরজা বন্ধ। এলাকার জনগনের মধ্যে বঞ্চনার ক্ষোভ বেড়েই চলছে। এই ক্ষোভের অবসানে বন্দরসহ সকল প্রতিষ্ঠানে হুকুম দখলে ক্ষতিগ্রস্থ স্থানীয় বেকার যুবকদের যোগ্যতার নিরীখে অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান সমূহের প্রতি তিনি আহবান জানান।

এই এলাকার নিউমুরিং ৫নং খালটি দখলে দুষণে আজ নালাতে পরিণত হয়েছে। তাই সামান্য বৃষ্টি বা জোয়ার ভাটার পানিতে এলাকার মানুষ ডুবে আর ভাসে। এসব দুর্ভোগ নিরসনের দায়িত্ব নেয় না কোন স্তরের কোন জনপ্রতিনিধি বা সেবা সংস্থা। খালটিকে পূর্ব অবয়বে ফিরিয়ে আনতে সিটি কর্পোরেশনকেই মূল দায়িত্ব নিতে হবে বলে জনাব সুজন উল্লেখ করেন।

সভায় ওয়াসার পানি সরবরাহের ব্যবস্থা না থাকায় এলাকার মানুষকে ২০ লিটারের এক ক্যান ওয়াসার পানি ৫০ টাকায় কিনে ব্যবহার করতে বাধ্য হচ্ছে বলে উল্লেখ করে বলেন, সুপেয় পানি উৎপাদনে বর্তমান সরকারের বিশাল ব্যবস্থা ওয়াসা কর্তৃপক্ষের অবহেলায় মানুষ ভোগ করতে পারছেনা।
এছাড়া গৃহস্থালী কজে গ্যাসের সমস্যার কারণে সবচেয়ে বেশী দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে নগরীর অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ এই ওয়ার্ডের জনসাধারণকে। এখানে প্রতিদিন সিইপিজেড, কেইপিজেড সব বিভিন্ন সরকারী বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করে জীবিকা নির্বাহ করে হাজার হাজার কর্মজীবি মহিলা। কিন্তু সারাদিন হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রম করে সন্ধ্যায় বাসা বাড়িতে ফিরে তাদের গ্যাসের জন্য হাহাকার নিত্যনৈমত্তিক ঘটনা হয়ে দাড়িয়েছে। এ অবস্থা থেকে সহসাই উত্তরণের জন্য জনাব সুজন কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্্িরবিউশন কোম্পানী লিমিটেড এর এমডির আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

তিনি আরো বলেন, অত্র এলাকায় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কর্মরত কর্মজীবি মহিলাসহ সাধারণ মহিলাদের স্বাস্থ্য সেবার জন্য কোন প্রকার চিকিৎসাকেন্দ্র বা মাতৃসদন হাসপাতাল নেই। ফলতঃ প্রসব বেদনা নিয়ে মহিলাদের শহরের প্রাণ কেন্দ্রে ছুটে যেতে হয় যা নিদারুন অমানবিক একটি ব্যাপার। তাই অত্র এলাকার সাধারণ মায়েদের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার জন্য একটি মাতৃসদন হাসাপাতাল নির্মাণ করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট আহবান জানান।তিনি নগরীর অন্যান্য এলাকার মত মাদক ব্যবসা ও ব্যবহারকেই আইন শৃংখলার প্রধান হুমকি বলে উল্লেখ করে বলেন, স্থানীয় ভালো লোকদের সহায়তা নিয়ে দুষ্ট লোকদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে পুলিশ প্রশাসনকে উদ্যোগ নিতে হবে।

স্থানীয় সমাজকর্মী আশরাফ উদ্দিন এর সঞ্চালনায় মতবিনিময় সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ইপিজেড থানা আওয়ামী লীগের আহবায়ক হাজী হারুনুর রশীদ, যুগ্ম-আহবায়ক মোঃ আবু তাহের, ৩৯নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী শফিউল আলম, বন্দর থানা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হাজী মোঃ ইলিয়াছ, আব্দুর রহমান মিয়া, এস.এম.কামাল, নাগরিক উদ্যোগের সদস্য সচিব হাজী হোসেন কোম্পানী, নগর যুবলীগ সদস্য আব্দুল আজিম, বন্দর থানা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক মোরশেদ আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুল হোসেন, সমাজসেবী আনোয়ার আহমদ মামুন, হাজী ছালেহ আহমদ জঙ্গী, মোঃ কামরুল, সচেতন নাগরিক সমাজের সদস্য সচিব হাজী হাবিব শরীফ, মওলানা মোঃ শুক্কুর, নগর যুবলীগ নেতা সমীর মহাজন লিটন, নগর স্বেচ্ছাসেবকলীগ সদস্য স্বরূপ দত্ত রাজু, জাগ্রত যুব জনতার সচিব রকিবুল আলম সাজ্জ্বী, সফি আলম বাদশা, নগর যুবলীগ সভাপতি এম. ইমরান আহমেদ ইমু, সাংগঠনিক সম্পাদক আমির হামজা, মোঃ জাহিদ হাসান, হাসান মুরাদ, মোঃ কাইয়ুম, হোসেন চৌধুরী সাদ্দাম, মোঃ কামাল, মোঃ শামসু, মোঃ সাখাওয়াত, মোঃ রাকিব, মোঃ বাপ্পী, মোঃ মিন্টু প্রমূখ।

x

Check Also

বিজয়ে জম্ম নেওয়া মহিউদ্দিন বিজয়েই চির বিদায় চট্টগ্রাম…!

মরিতে চাই না আমি সুন্দর ভুবনে, বাচিঁতে চাই সর্বদা এই চট্টলায়….., আমি অহংকারী বীর চট্টলার ...