মন্ত্রণালয়ের অজুহাত দেখিয়ে হোল্ডিং ট্যাক্স আদায় বন্ধ করুন ৩৮ , ৩৯নং ওয়ার্ড নাগরিক পরিষদের মানব বন্ধন

হোসেন বাবলা:২৪অক্টোবর

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন কতৃক অস্বাভাবিক হোল্ডিং ট্যাক্স বাতিল করে পূর্বের নিয়মে আদায় করার দাবীতে বন্দর এলাকায় এক বিশাল মানব বন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ রবিবার সকালে অনুষ্ঠিত হয়। বর্ধিত গৃহকর প্রত্যাহার নাগরিক পরিষদ ৩৮ ও ৩৯ নং ওয়ার্ড শাখার যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত এই মানব বন্ধন পূর্ব প্রতিবাদ সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের ৩৮ নং ওয়ার্ড শাখার আহবায়ক হাজী হোসেন কোম্পানী। সংগঠনের ৩৯ নং ওয়ার্ড শাখার সদস্য সচিব মোঃ কামরুল এর সঞ্চালনায় উক্ত প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন মহল্লা সর্দার শাহনেওয়াজ চৌধুরী, বিশিষ্ট সমাজ সেবক এস.এম আবু তাহের, সংগঠনের ৩৯নং ওয়ার্ড শাখার আহবায়ক আনোয়ার আহমদ মামুন, ৩৮ নং ওয়ার্ড শাখার সদস্য সচিব মোঃ কামাল উদ্দিন, সমাজসেবী শের আলী সওদাগর, হাজী মহসিন, মোঃ রোকন উদ্দিন, অধ্যক্ষ কামরুল হোসেন, যুবনেতা শামসুল আলম, আব্দুল আজিম, মোঃ সাগির, মোঃ জামাল, আলী নেওয়াজ মেম্বার, হাজী সেলিম, সাজ্জাদ হোসেন, মোঃ সাইফুল ইসলাম, শাহনেওয়াজ শানু, মোঃ রফিক, আব্দুল হক, মাহবুবুল আলম, স্বরূপ দত্ত রাজু, হাজী সেকান্দর, মোঃ শাহনেওয়াজ, মোঃ রায়হান, সবুজ দে রতন, মোঃ কাইয়ুম, মোঃ নোমান, মোঃ গিয়াস প্রমূখ।

সভায় বক্তারা বলেন, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন ১৯৮৬ সালের একটি বিধির অজুহাতে ঘর ভাড়ার আয়ের উপর হোল্ডিং ট্যাক্স নির্ধারণ করেছে। নতুন নিয়মে নির্ধারিত গৃহ কর আগের চেয়ে ১০ থেকে ১৫ গুন বেশি। ক্ষেত্র বিশেষে কোন কোন এলাকায় ২০ গুন বেশিও হোল্ডিং ট্যাক্স নির্ধারণ করা হয়েছে। অথচ ইতিপূর্বে সকল মেয়রগণের আমলে আকার আয়তনের ভিত্তিতে হোল্ডিং ট্যাক্স আদায় করা হতো। ইতিমধ্যে মাননীয় মেয়র মহোদয় বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন এবং সর্বস্তরের নগরবাসীর সকল প্রকার আবেদন নিবেদন উপেক্ষা করে সম্পূর্ণ গায়ের জোরে নগরবাসীর উপর ট্যাক্সের খড়গ বসিয়ে দেওয়ার যে নীল নকশা হাতে নিয়েছে তাতে আমরা সত্যিকার অর্থেই ক্ষুদ্ধ। আমরা মাননীয় মেয়র মহোদয়ের এহেন কর্মকান্ডের তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করছি।

সভায় বক্তারা আরো বলেন, বর্তমান নিয়মে নির্ধারণ করা এ অস্বাভাবিক এবং অযৌক্তিক হোল্ডিং ট্যাক্সের কারণে বাড়ি ভাড়া অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যাবে। যার ফলে সবচেয়ে বেশী চাপে পড়বে নগরীর নি¤œ ও মধ্য আয়ের মানুষজন। তারা বাধ্য হবে এ শহর ছেড়ে চলে যেতে। ফলতঃ শ্রমিক সংকটে বন্ধ হয়ে পড়বে চট্টগ্রামের শিল্প কারখানার উৎপাদন। স্থবির হয়ে পড়বে চট্টগ্রামের অর্থনীতি। আর চট্টগ্রামের আদি বাসিন্দারা বর্ধিত ট্যাক্সের চাপে পিষ্ট হয়ে ঘর বাড়ী বিক্রি করে অন্যত্র চলে যেতে বাধ্য হবেন। তাই বানিজ্যিক রাজধানী খ্যাত চট্টগ্রামকে বিরানভূমিতে পরিণত হওয়ার হাত থেকে রক্ষা করার জন্য অনতিবিলম্বে বর্ধিত হোল্ডিং ট্যাক্স প্রত্যাহার করা হোক।

প্রতিবাদ সভা শেষে নেতৃবৃন্দ মিছিল সহকারে ৩৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর গোলাম মোহাম্মদ চৌধুরী এবং ৩৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর জিয়াউল হক সুমনের কাছে স্মারকলিপি হস্তান্তর করেন। স্মারকলিপি গ্রহন করে কাউন্সিলরবৃন্দ বলেন, বর্ধিত হোল্ডিং ট্যাক্সের ব্যাপারে জনগনের ক্ষোভের বিষয়ে আমরা ইতিমধ্যে অবগত হয়েছি। আমরা মেয়র মহোদয়ের সাথে আলোচনা করে বর্ধিত হোল্ডিং ট্যাক্স প্রত্যাহারের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করার অনুরোধ জানাবো।

x

Check Also

ঈদে মিলাদুন্নবী (দঃ)হচ্ছে মুসলিম মিল্লাতের ঐক্যের প্রতীক,সূফি মিজান

হোসেন বাবলা:১৯নভেম্বর বন্দর নগরীতে নগর গাউছিয়া কমিটির উদ্যোগে পবিত্র মাহে রবিউল আউয়াল উপলক্ষে স্বাগত জানিয়ে ...