বান্দরবানে কোনো রোহিঙ্গা থাকবে না …..জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিক

বান্দরবান প্রতিনিধি : মিয়ানমার থেকে সহিংসতার শিকার হয়ে পালিয়ে আসা কোনো রোহিঙ্গা শরনার্থী বান্দরবানে থাকতে পারবেনা, এবং যারা এর মধ্যে বিভিন্ন সীমান্ত এলাকায় অস্থায়ী শিবিরে আশ্রয় নিয়েছে তাদের সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কক্সবাজারের বালুখালি আশ্রয় কেন্দ্রে পাঠিয়ে দেয়া হবে বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন বান্দরবানের জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিক।

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার সাতটি সীমানা পয়েন্ট দিয়ে প্রবেশ করা রোহিঙ্গারা যাতে নির্ধারিত স্থানের বাইরে ছড়িয়ে পড়তে না পারে সে ব্যাপারেও আইনশৃংখলা বাহিনীকে কড়া নির্দেশনা দেওয়ার কথা জানান তিনি।

এছাড়াও বান্দরবান সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোতে রোহিঙ্গা ব্যবস্থাপনা সঠিকভাবে পরিচালনার জন্য স্থায়ীভাবে একজন ম্যাজিষ্ট্রেট নিয়োগ দেয়া হয়েছে এবং সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী রোহিঙ্গাদের বান্দরবানের বিভিন্ন এলাকা থেকে উদ্ধার করে স্ব-সম্মানে কক্সবাজারের ক্যাম্পে পাঠানোর কাজও চলছে, জানান ডিসি।

মঙ্গলবার সকালে বান্দরবান জেলা প্রশাসকের সভাকক্ষে জেলা প্রশাসন আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে এসব তথ্য জানান জেলা প্রশাসক। এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) দিদারে আলম মো. মাকসুদ চৌধুরী, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট মুফিদুল আলম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো:কামরুজামান, বান্দরবান সেনা জোনের মেজর মো. শফিকুর রহমান, জেলা সিভিল র্সাজন ডা.অংসুই প্রু মারমা, প্রেস ক্লাব সভাপতি আমিনুল ইসলাম বাচ্চু, সম্পাদক মো. ফরিদুল আলমসহ বিভিন্ন প্রিন্টও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় কর্মরত সাংবাদিকরা।

এদিকে সংবাদ সম্মেলনে অংশ নিয়ে জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. কামরুজ্জামান রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উস্কানিমুলক পোষ্টকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান।

এ পর্যন্ত প্রায় পাঁচ হাজারেরও বেশি রোহিঙ্গাকে স্বাস্থ্য সেবাও ওষুধ দিয়েছে সিভিল র্সাজনের নেতৃত্বে গঠিত মেডিক্যাল টিম, জানান সিভিল র্সাজন অংশৈপ্রু মারমা।

এদিকে জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, এ পর্যন্ত বান্দরবান সীমান্ত দিয়ে প্রবেশ করা রোহিঙ্গাদের মধ্যে প্রাথমিক নিবন্ধনের আওতায় এসেছে প্রায় পনের হাজারেরও বেশি মানুষ। অনিবন্ধিত রয়েছে আরো প্রায় চল্লিশ হাজার।

জেলা প্রশাসনের নির্ধারিত চারটি ত্রাণ কেন্দ্রের মাধ্যমে ত্রাণ বিতরণ করা হচ্ছে। এসব ত্রাণ কার্যক্রম সরাসরি তত্বাবধান করছেন নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা র্নিবাহী অফিসার এবং জেলা প্রশাসনের একজন ম্যাজিষ্ট্রেট।

x

Check Also

বিজয় দিবসে শোক জানালো মাঝির ঘাট ট্রাক হেলপার সমবায় সমিতি…!

৪৬তম মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে মাঝির ঘাট ট্রাক হেলপার সমবায় সমিতি লিঃ এর উদ্যোগ বিজয় ...