জাতীয় শিক্ষা দিবস উপলক্ষে নগর ছাত্রদলের আলোচনা সভায়-ডা. শাহাদাত


শিক্ষাখাতে সরকারের পর্যাপ্ত বাজেট বরাদ্দ না করাকে
একটি রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে সরকারী ষড়যন্ত্র হিসেবে চিহ্নিত করছি
‘শিক্ষাই জাতির মেরুদন্ড’, শিক্ষা ছাড়া কোন জাতি উন্নয়ন করতে পারে না। একটি জাতি সমাজ ও রাষ্ট্রের উন্নয়নে শিক্ষা অপরিহার্য। তাই জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সর্বস্তরের নেতাকর্মীদেরকে অবশ্যই জ্ঞানার্জনে মনোনিবেশ করতে হবে উল্লেখ করে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন বলেন, জাতীয় শিক্ষা দিবস ২০১৭ যেভাবে পালন হওয়ার কথা ছিল ঠিক সেইভাবে পালিত হচ্ছে না। শিক্ষার প্রতি সরকারের অবহেলার অন্যতম উদাহরণ আজকের শিক্ষা দিবস। সরকার শিক্ষাকে গুরুত্ব না দিয়ে শিক্ষার্থীদের পথভ্রষ্ট করে প্রকৃত জ্ঞান অর্জন থেকে দূরে সরিয়ে রেখে আমাদের প্রিয় বাংলাদেশকে ধ্বংসের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। শিক্ষা আমাদের মৌলিক অধিকার। কিন্তু বাংলাদেশের এমনও অনেক এলাকা আছে যেখানে শিক্ষাক্ষেত্রে পর্যাপ্ত সরকারি সহযোগিতা পাওয়া যায় না। বিশেষ করে গ্রামাঞ্চলের শিক্ষার্থীরা সরকারি সুযোগ সুবিধা থেকে অনেকাংশেই বঞ্চিত। জাতীয় শিক্ষা দিবস উপলক্ষে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রদল আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথা বলেন। চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রদল সভাপতি গাজী মোঃ সিরাজ উল্লাহর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক বেলায়েত হোসেন বুলুর সঞ্চালনায় অদ্য ১৬ সেপ্টেম্বর বিকাল ৪ ঘটিকায় নগরীর চেরাগী পাহাড়স্থ “সুপ্রভাত স্টুডিও হলে” প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর। এসময় অন্যান্যের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির দপ্তর সম্পাদক (যুগ্ম সম্পাদক) বাবু টিংকু দাশ, সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুল ইসলাম, কোতোয়ালী থানা বিএনপির সভাপতি মঞ্জুর রহমান চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন, বাকলিয়া থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আফতাবুর রহমান শাহীন, নগর বিএনপির তথ্য ও প্রকাশনা সম্পাদক আলমগীর নুর, নগর ছাত্রদলের সহ-সভাপতি জসিম উদ্দিন চৌধুরী, যুগ্ম সম্পাদক আলী মর্তুজা খান, জমির উদ্দিন নাহিদ প্রমুখ। এসময় শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করা হয়।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডা. শাহাদাত হোসেন আরও বলেন, শিক্ষাক্ষেত্রে সরকারের পর্যাপ্ত বাজেট বরাদ্দ না করাকে আমরা একটি রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে সরকারের ষড়যন্ত্র হিসেবে চিহ্নিত করছি। যেখানে একটি উন্নয়নশীল দেশে শিক্ষাক্ষেত্রে সর্বোচ্চ বরাদ্দ থাকার প্রয়োজন, সেখানে বাজেটে শিক্ষাখাতে বরাদ্দ কমিয়ে উন্নয়নের নামে জনগণের টাকা লুটপাট করে খেয়ে ফেলছে অবৈধ সরকারের দুর্নীতিবাজ মন্ত্রী-এমপিরা। আমরা বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের পক্ষ থেকে সরকারের এরূপ লুটপাট তন্ত্রের বিরুদ্ধে জোড়ালো প্রতিবাদ জানাই। শিক্ষার উন্নয়নে প্রয়োজন হলে কঠোর কর্মসূচি নিয়ে রাজপথে আন্দোলন করবে বিএনপি। এইচ.এস.সি-আলিম-এস.এস.সি-দাখিল ও সমমনা পরীক্ষা সমূহে পাশের হার বাড়িয়ে সরকার রাজনৈতিক ফায়দা হাসিলের চেষ্ঠা করছে। এতে দেশের শিক্ষা ব্যবস্থা অনেকটাই মুখ থুবড়ে পড়েছে, শিক্ষার্থীরা বঞ্চিত হচ্ছে প্রকৃত শিক্ষা থেকে।
প্রধান বক্তা আবুল হাশেম বক্কর বলেন, শিক্ষার গুরুত্ব কি তা হয়ত জানে না আওয়ামীলীগ সরকার। বর্তমানে শিক্ষাকে তারা বাণিজ্যে রূপান্তরিত করেছে। শিক্ষার নামে হাতিয়ে নেওয়া হচ্ছে সাধারণ শিক্ষার্থীদের টাকা। আমরা ইতিমধ্যে লক্ষ করেছি সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে বাড়তি টাকা আদায় করা হচ্ছে। সরকারের উচিত শিক্ষা ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ বাজেট বরাদ্দ করে শিক্ষার্থীদেরকে বিনামূল্যে পড়ালেখা করার সুযোগ করে দেয়া। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সমূহে শিক্ষা ব্যবস্থার কার্যক্রম মনিটরিং করার জন্য একটি বিশেষ সেল গঠন করা প্রয়োজন, যাতে করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সমূহে দুর্নীতি বন্ধ করা যায়। অবনমনের দিকে থাকা বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থাকে পুনঃরায় মানসম্মত ও বাস্তবমুখী করে তুলতে হবে। যাতে শিক্ষার্থীরা শিক্ষার প্রকৃত স্বাদ নিতে পারে এবং সঠিক অর্থে জ্ঞান অর্জন করার সুযোগ পায়।

x

Check Also

চট্টগ্রাম ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটিতে গ্রামীণফোনের ক্যারিয়ার সেশন ও ডিজিটাল কার্নিভাল

[চট্টগ্রাম, ২০ নভেম্বর, ২০১৭] বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের গ্রামীণফোনে ক্যারিয়ার গঠনের সম্ভাবনা ও সুযোগ নিয়ে এবং একইসাথে ...