জেএসসি পরীক্ষার রেজিষ্ট্রশন সংক্রান্ত দূর্নীতি তদন্ত কমিটির প্রধানের সাথে বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন স্কুল এন্ড কলেজ ঐক্য পরিষদের নেতৃবৃন্দের সৌজন্যে সাক্ষাত

অদ্য ১৬ জুলাই ২০১৭ইং রবিবার বিকাল ৪ ঘটিকায় মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড চট্টগ্রামের উপ-বিদ্যালয় পরিদর্শক ও জে এস সি ২০১৭ইং পরীক্ষার রেজিষ্ট্রশন সংক্রান্ত দূর্নীতি তদন্ত কমিটির প্রধান মোঃ আবুল মনসুর ভূইয়ার সাথে বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন স্কুল এন্ড কলেজ ঐক্য পরিষদের নেতৃবৃন্দের সৌজন্যে সাক্ষাত অনুষ্ঠিত হয়। সাক্ষাতকারে নেতৃবৃন্দ বলেন, ১ম বারের মত জে এস সি পরীক্ষা যখন অনুষ্ঠিত হয় তখন অনুমোদন বিহীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলির জন্য রাষ্ট্রপতির আদেশ ক্রমে শিক্ষা মন্ত্রনালয় থেকে একটি পরিপত্র জারি করা হয়। যার নং- সংখ্যা-শিম/শাঃ১১/৩-৬/২০০৯/৪৬১, তারিখ ১৫ জুন ২০১০ইং। উক্ত পরিপত্র মূলে ঐক্য পরিষদের বর্তমান সভাপতি এম ইকবাল বাহার চৌধুরীর নেতৃত্বে তৎকালীন নেতৃবৃন্দ চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান ও স্কুল পরিদর্শক মহোদয়ের সাথে ফলপ্রসু আলোচনার পর চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ড একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে যে, অনুমোদন বিহীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলি পার্শ্ববর্তী অনুমোদিত ৩ (তিন) টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নাম উল্লেখ করে চেয়ারম্যান মহোদয়ের বরাবরে ৮ম শ্রেণির রেজিষ্ট্রশন জন্য আবেদন করতে হবে। সে মোতাবেক অনুমোদন ছাড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলি পার্শ্ববর্তী অনুমোদিত ৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নাম উল্লেখ করে আবেদন করলে বোর্ড উল্লেখিত যে কোন ১টি থেকে ১৫০/- (একশত পঞ্চাশ) টাকা বোর্ড ফি এবং জন প্রতি ৫০/- (পঞ্চাশ) টাকা অতিরিক্ত ফি উক্ত অনুমোদিত স্কুলগুলিকে প্রদান করতে হবে। সে ক্ষেত্রে অননুমোদিত স্কুলগুলির ১জন শিক্ষার্থীর রেজিষ্ট্রেশন ফি বাবদ প্রদান করতে হয়েছে মোট ২০০/- (দুইশত) টাকা। এ নিয়ম ২০১১ পর্যন্ত অব্যহত ছিল। যখন ২০১২ সালে একই নিয়মে অননুমোদিত স্কুলগুলি আবেদন নিয়ে যখন বোর্ডে যায় তখন বোর্ডের স্কুল শাখার সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা / কর্মচারীরা জানান যে উক্ত নিয়মে আর আবেদন করা যাবে না। আবেদনে যে অনুমোদিত স্কুল থেকে পরীক্ষা দেয়াতে ইচ্ছুক সেই স্কুলের প্রধান শিক্ষকের সুপারিশ লাগবে। তার প্রেক্ষিতে অননুমোদিত স্কুলগুলির প্রধানগণ অনুমোদিত স্কুলের প্রধানদের কাছে সুপারিশের জন্য যায় আর্শ্চযের বিষয় হলো যে সকল অনুমোদিত প্রতিষ্ঠানের প্রধানগণ জানান যে সুপারিশ নিতে হলে আগে কন্ট্রাক্ট-এ আসতে হবে। জনপ্রতি কন্ট্রাক্ট রেজিষ্ট্রেশন ফি ১০০০ টাকা। তখন আমরা নিরুপায় হয়ে আবার বোর্ডে এসে কোনো সহযোগীতা না পেয়ে নিরুপায় হয়ে কন্ট্রাক্টে রেজিষ্ট্রেশন করিয়ে নিই যাহা ২০১৭ সালে এসে অনুমোদিত স্কুলগুলি জনপ্রতি ১৫০০টাকা থেকে ২৫০০টাকা পর্যন্ত নিচ্ছে। যা ১২ই জুলাই দৈনিক কর্ণফুলী পত্রিকা ও ১৫ই জুলাই দৈনিক আজাদীতে সংবাদ পরিবেশনের পর বোর্ড কর্তৃপক্ষ উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড চট্টগ্রামের উপ-বিদ্যালয় পরিদর্শক জনাব মোঃ আবুল মনসুর ভূইয়াকে প্রধান করে এই দুর্নীতি তদন্তেÍ একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। যার প্রেক্ষিতে ঐক্য পরিষদ নেতৃবৃন্দ উক্ত কর্মকর্তার সাথে দুর্নীতির বিষয়ে একটি আবেদন করেন। যে সব স্কুলগুলি অসহনীয় রেজিষ্ট্রেশন ফি দাবি করতেছে তার মধ্যে আগ্রাবাদ মুহুরীপাড়াস্থ আলহাজ্ব এম.এ সালাম উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ শাহআলম উল্লেখযোগ্য। যার নাম ১৫ই জুলাই দৈনিক আজাদীতে প্রকাশিত হয়েছে। নেতৃবৃন্দ এ ব্যাপারে বোর্ড কর্তৃপক্ষের একটি স্থায়ী সমাধান আশা করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন স্কুল এন্ড কলেজ ঐক্য পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এম. ইকবাল বাহার চৌধুরীসহ মিসেস আমেনা বাতেন, মোঃ সাজিদ ইকবাল, মোঃ নজরুল ইসলাম খান, মোঃ তোফায়েল হোসেন, মোঃ আবু ইউনুছ, মোঃ আলতাফ হোসেন, মোঃ সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, মোঃ দেলোয়ার হোসেন, কে.এম মনিরুজ্জামান, মিসেস রাশেদা রহমান, মোঃ দেলোয়ার হোসেন চৌধুরী, মিসেস রাহেলা বি চৌধুরী, মোঃ আমজাদ হোসাইন, মোঃ খায়ের উদ্দিন, মোঃ বদিউল আলম, মোঃ আমিরুল হক, রাহুল চৌধুরী, মিসেস জোবেদা আক্তার, অধ্যাপক মোঃ নাজিম উদ্দিন, এস.এম আবছার উদ্দীন, ইঞ্জিঃ মোঃ হোসেন মুরাদ, মোঃ নুরুল ইসলাম, রনজিত কুমার নাথ, মোঃ মামুন হোসেন প্রমুখ।

x

Check Also

কর্ণফুলী নদী বাঁচাও আন্দোলনের সভায় বক্তারা ঐতিহ্যবাহী কর্ণফুলী নদী সহ চট্টগ্রাম জেলার নদ-নদীগুলো রক্ষা করুণ

ঐতিহ্যবাহী কর্ণফুলী নদী বাঁচাও আন্দোলনের উদ্যোগে “কর্ণফুলী নদী বাঁচলে চট্টগ্রাম বাঁচবে” এই প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে ...