কোহলির অহংকারের পতন ঘটলো

আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে শক্তিশালী ভারতকে হারালো পাকিস্তান। রবিবার ওভালে বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে তিনটায় শুরু হওয়া ম্যাচটি পাকিস্তানের বোলারদের সামনে দাঁড়াতেই পারেনি ভারত। সরফরাজদের ৩৩৮ রানের জবাবে খেলতে নেমে মাত্র ১৫৮ রানে অলআউট হয়ে যায় কোহলিরা।  অথচ এই ভারত চাম্পিয়ন্স ট্রফির শুরু থেকেই বেশ দাপট দেখিয়েছেন। বাংলাদেশের মতো কম শক্তিমত্তার দল গুলোর সঙ্গে মাঠে যা ইচ্ছে তাই ব্যাবহার করেছেন। সর্বশেষ সেমিফাইনালের দিন বাংলাদেশের ব্যাটিংয়ের সময় বাজে অঙ্গ-ভঙ্গিও করতে দেখা গেছে দলটির অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে। তাই পাকিস্তানের বিপক্ষে হারের পরই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বলাবালি শুরু হয়েছে ‘কোহলির অহংকারের পতন ঘটলো।’

এ এক অদ্ভুত ফাইনাল! পাকিস্তান কোথাও ছিল না। ভারত ছিল হট ফেভারিট। অনেকের শঙ্কা ছিল, আইসিসি চ্যঅম্পিয়ন্স ট্রফিটা না একপেশে হয়ে যায়। রেকর্ড গড়া তৃতীয় শিরোপাটা জেতার পথে আগেরবারের চ্যাম্পিয়ন ভারত না ফাইনালটাকে একার ম্যাচ করে ফেলে! তা ফাইনালটা একপেশেই হলো। সবার ভাবনার বাইরে গিয়ে।

কেন পাকিস্তানের ইতিহাস ‘আনপ্রেডিক্টেবল’ দলের সেটাই রোববার ওভালের ফাইনালে খুব প্রমাণিত। ভারতকে উড়িয়ে দিয়ে পুড়িয়ে ছাই করে প্রথমবারের মতো ফাইনালে উঠেই আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির শিরোপা জিতলো পাকিস্তান- কথাটা এভাবে বললেও একদম ভুল হবে না। কে ভেবেছিল? ১৮০ রানে ফাইনাল জিতে শিরোপা উৎসব পাকিস্তানের! ৩৩৯ রানের লক্ষ্য তাড়া করে ৩০.৩ ওভারেই মাত্র ১৫৮ রানে ভারতের নটেগাছটি মুড়িয়ে গেলো! বিশ্বাস হয়?

ভারত সেই ২০০৪, ২০০৫ এ চিরশত্রু পাকিস্তানের বিপক্ষে ৩৫৬, ৩৪৯ রানও করেছে। হারেনি। আবার ৩৩০ রানের লক্ষ্য জয় করেও জিতেছে। কিন্তু এর কোনোটা তো আইসিসির বৈশ্বিক আসরের ফাইনাল ছিল না। এই প্রথম আইসিসির ওয়ানডে টুর্নামেন্টে ভারত-পাকিস্তান ফাইনাল। আর ওভাল পুরোপুরি ভারত-পাকিস্তানের মাঠই হয়ে উঠেছিল সমর্থকদের কারণে।

কিন্তু ম্যাচের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সেটা কেবল পাকিস্তানের ভক্ত-সমর্থকদের একচ্ছত্র আধিপত্যের মাঠ হয়ে রইলো। তাদেরই কণ্ঠ আর উৎসব। ফখর জামানের (১১৪) অসাধারণ সেঞ্চুরি এলো যে ফাইনালে সেটিতে মোহাম্মদ আমিরের নেতৃত্বে পাকিস্তানের বোলিংও পুরোনো দিনের মতো জ্বলে উঠলো। ব্যাটিংয়ে পাকিস্তান ভারতের বোলিংকে পোড়ালো আগে। তারপর প্রতিপক্ষের ব্যাটিংকে ছাইভস্ম করলো দুর্দান্ত বোলিংয়ে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

পাকিস্তান ইনিংস: ৩৩৮/৪ (৫০ ওভারে) (আজহার ৫৯, ফখর ১১৪, বাবর ৪৬, মালিক ১২, হাফিজ ৫৭*, ইমাদ ২৫*; ভুবনেশ্বর ৪৪/১, বুমরাহ ৬৮/০, অশ্বিন ৭০/০, হার্দিক ৫৩/১, জাদেজা ৬৭/০, কেদার ২৭/১)।

ভারত ইনিংস: ১৫৮ অলআউট (৩০.৩ ওভারে) (রোহিত ০, শিখর ২১, কোহলি ৫, যুবরাজ ২২, ধোনি ৪, কেদার ৯, হার্দিক ৭৬, জাদেজা ১৫, অশ্বিন ১, ভুবনেশ্বর ১*, বুমরাহ ১; আমির ১৬/৩, জুনাইদ ২০/১, হাফিজ ১৩/০, হাসান ১৯/৩, শাদাব ৬০/২, ইমাদ ৩/০, ফখর ২৫/০)।

x

Check Also

প্রধান মন্ত্রী মানবতার আশ্রয়টি বিশ্বে মাদার অফ হিউম্যানিটি বিরল অর্জন …!

১০ ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস উদ্যাপন বাবুল হোসেন বাবলা:চট্টগ্রাম/১০ডিসেম্বর হিউম্যান রাইটস অফ বাংলাদেশ ফাউন্ডেশনের বিভাগীয় ...