আড়াই বছর পর গাজীপুর সিটি মেয়রের চেয়ারে অধ্যাপক এম এ মান্নান

মুহাম্মদ আতিকুর রহমান (আতিক), গাজীপুর জেলা প্রতিনিধি ঃ
দুই বছর চার মাস পর গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের প্রথম নির্বাচিত মেয়র অধ্যাপক এমএ মান্নান মেয়রের চেয়ারে বসেছেন।

সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশে ১৮ জুন রবিবার দুপুর ১টার দিকে তিনি নগর ভবনে গিয়ে তার নিজ দপ্তরের মেয়রের চেয়ারে বসেন।

এ সময় মেয়র এম এ মান্নান এক প্রতিক্রিয়ায় সাংবাদিকদের বলেন, ‘বার বার আমাকে মামলা দিয়ে হয়রানি করা হয়েছে। আইনি লড়াইয়ের মাধ্যমে আজ এখানে বসতে পেরেছি। পুনরায় গাজীপুর মহানগরের মানুষের সেবা করার সুযোগ পেয়েছি।’

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, সিটি কর্পোরেশনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করে যে সব কাজ অগ্রাধিকার ভিত্তিতে করা দরকার, সে কাজগুলোই তিনি করবেন।

এর আগে এম এ মান্নান নগর ভবনে আসবেন- এ খবরে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মী এবং গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের বিএনপি পন্থী কাউন্সিলরগণ নগর ভবনের সামনে এসে উপস্থিত হন। অধ্যাপক মান্নান নগর ভবনের প্রধান ফটকের সামনে মাইক্রোবাস থেকে নামার পর দলীয় নেতা-কর্মী, কাউন্সিলরগণ এবং সিটি কর্পোরেশনের কর্মচারীরা তাকে ফুল ছিটিয়ে স্বাগত জানান। পরে তিনি দোতলায় তার নিজ দপ্তরে যান এবং মেয়রের চেয়ারে বসেন। এর আগে মেয়র তার বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া এক মামলায় গাজীপুর আদালতে হাজিরা দেন।

উল্লেখ্য, যাত্রীবাহী বাসে পেট্রোল বোমা হামলার মামলায় ২০১৫ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি মেয়র মান্নানকে ঢাকার বারিধারার বাসভবন থেকে গ্রেফতার করা হয়। তার বিরুদ্ধে আদালত কর্তৃক অভিযোগপত্র গৃহীত হলে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় তাকে সাময়িক বরখাস্ত করে। মান্নান গ্রেফতার হওয়ার পর ২০১৫ সালের ৮ মার্চ থেকে ভারপ্রাপ্ত মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন প্যানেল মেয়র আসাদুর রহমান কিরণ।

২০১৬ সালের ২ মার্চ অধ্যাপক মান্নান জামিনে মুক্তি পান। পরে ওই বছরের ১৫ এপ্রিল রাতে তাকে ফের গ্রেফতার করা হয়। তার বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া ৩০টি মামলায় জামিন লাভের পর ২০১৭ সালের ৬ জানুয়ারি মুক্তি পান।

x

Check Also

পাকিস্তানীরা বাঙ্গালী জাতীকে মেধাশূণ্য করতে চেয়েছিল,সাবিহা নাহার

চিটাগং ডেইলি.কম(প্রতিবেদক):১৪ডিসেম্বর বুদ্ধিজীবিদের হত্যা করে পাকিস্তানীরা বাঙ্গালীজাতীকে মেধাশূণ্য করতে চেয়েছিল। কিন্তু বাঙ্গালী জাতি বীরের জাতি। ...