চার ম্যাচের জন্য নিসিদ্ধ গৌতম গাম্ভীর

মার্চ মাসে দিল্লির রঞ্জি কোচ কেপি বাসকারের সঙ্গে খুবই বাজে ব্যবহার করেন গৌতম গাম্ভীর। তার সঙ্গে অশালীন ভাষায় বিতণ্ডায়ও জড়ান। সেটা নিয়ে তখন বেশ হৈচৈ হয়েছিল। গঠন করা হয়েছিল তদন্ত কমিটি। সেই তদন্ত কমিটি গাম্ভীরকে দোষী সাব্যস্ত করে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

গাম্ভীরের অপরাধের পরিমাণ এতোই বেশি ছিল যে তাকে দুই বছরের জন্য নিষিদ্ধ করারও একটা প্রস্তাব উঠেছিল। কিন্তু পরবর্তী সময়ে সেই কোচের সঙ্গে গৌতম গাম্ভীর আপোষ করেন। নিজের ভুল স্বীকার করেন এবং পরবর্তীতে এমন ব্যবহার আর করবেন না বলে জানান। সে কারণে তাকে দুই বছর নয়, চার ম্যাচের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে। আগামী বছর প্রথম শ্রেণির চারটি ম্যাচ খেলতে পারবেন না তিনি।

তদন্ত কমিটিতে ছিলেন দিল্লি ও জেলা ক্রিকেট সংস্থার প্রশাসক বিচারক বিক্রমজিত সেন, চেয়ারম্যান মদন লাল, রাজেন্দ্র আর রাঠোরি ও অ্যাডভোকেট সনি সিং।

তারা জানিয়েছেন গাম্ভীর যে আচরণ করেছেন সেটা খুবই মারাত্মক ও দৃষ্টিকটু এবং সম্পূর্ণ অখেলোয়াড়সুলভ। এই ধরণের আচরণ তরুণ ক্রিকেটারদের মনে বিরূপ প্রভাব ফেলে। গাম্ভীর যখন দিল্লির কোচের সঙ্গে বাজে আচরণ করছিলেন তখন সেখানে নিতিশ রানা, উন্মুখ চাঁদ ও পবন নেগির মতো তরুণ ক্রিকেটাররা ছিল। তার মতো একজন জৈষ্ঠ্য ক্রিকেটারের কাছ থেকে এমন আচরণ কাম্য নয়। তারা তাকে ভৎসনা করেন।

x

Check Also

পিএসজির হয়ে মাঠে নামার আগে কাঁদলেন নেইমার

দে পাঁসে তুলুজের বিপক্ষে ম্যাচ। সতীর্থদের সঙ্গে দাঁড়ালেন নেইমার। দলীয় সঙ্গীত গাইলেন। তখনই নেইমারকে দেখা ...