বিশ্বের সবচেয়ে বড় মহিলার আগমনের জন্য সংযুক্ত আরব আমিরাতে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা আশা করছেন

৩৬ বছর বয়সী মিশরীয় এই নারী নাম তার ইমান আবদুল আত্তি। যার ২৫ বছর ধরে একমাত্র বিছানাই ছিল তার স্থান। এমনকি তার শরীরের ওজন ৫০০ কেজি পর্যন্ত পৌঁছে গিয়েছিল। চলাফেরাতো দুরের কথা এমনকি গায়ে নিজ্ব দায়িত্বে নড়াচড়া পর্যন্ত ও করতে পারতনা মিশরীয় এই নারী। ওজন কমাতে গত ২ মাস আগে ভারতে সাইফি হসপিটালে আনা হয় তাকে ,এ্যাম্বুলেন্সে জাইগা না থাকাই নেয়া হয় ট্রাকে এমনকি লিফটে জাইগা না হওয়াই ট্রেনে করে তুলা হয় হাসপাতালের বেটএ। নিয়মিত ভারতে ২ মাস চিকিসাৎ চালিয়ে তার ওজন প্রায় ২৪২ কেজি কমিয়ে ২৬২ কেজি পর্যন্ত নিয়ে আসেন। এবং চিকিসাৎকরা জানান বছর শেষে তার ওজন ২০০ কেজির মধ্যে নিয়ে আসা হবে।
আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মুম্বাই থেকে ইউএই আবুধাবির বুরজিল মেডিকেল হসপিটালে পৌঁছানো ব্যাবস্থা করা হবে বলে সব ধরনের প্রস্তুতি নেয় ইমান আবদুল আত্তি জন্য। ভিপিএস হেলথকেয়ার, দুবাই ও উত্তর আমিরের সিইও এবং উন্নত অস্ত্রোপচারের জন্য বুরজিল হাসপাতালের প্রধান নির্বাহী ডঃ শাজিরা গফ্ফার,যিনি রোগীর সাথে যুক্ত থাকায় সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে মুম্বাইয়ে চলে যান, এবং তিনি আরও জানান হাসপাতালটি সম্পূর্ণ ভাবে সব কিছুর ব্যাবস্থা করা হয়েছে ইমান আব্দুল আত্তির জন্য, যার একটি বিশেষ এয়ারবাসে চিকিসাৎ করা হবেও বলে জানান।
তিনি আরও জানান বর্তমানে আমদের রোগীর জন্য প্রদান করা হয় এমন মাল্টি-শৃঙ্খলা পদ্ধতির ১৫ সদস্যের একটি দল আছে। আমরা এভিয়েশন ডাক্তার, প্যারামেডিক্স, লজিস্টিকস সাপোর্ট, নার্সস, তারা এখানে স্থলভাগে তার নিরাপদ চিকিৎসা পরিবহনের জন্য আগামীকাল সাইফাই হসপিটাল থেকে এয়ারপোর্ট পর্যন্ত এমন কি ফ্লাইটের ভিতরে ডাক্তার,বিমানচালনা, নিয়মিত ঔষধ, সিনিয়র ফ্লাইট প্যারাডাইদ সহ তার সঙ্গে পাঁচজন বিশেষজ্ঞ উপস্থিত থাকবে।
আব্দুল আত্তির পরিবার ও ডাঃ মফজল লক্ষাধওয়ালের মধ্যে বির্তকের পর ভারতের সাইফ হাসপাটালে আব্দুল আত্তির বারিয়েট্রিক সার্জন করার পর, আবুধাবীর বুরজীল হসপিটালে সাহায্যের জন্য যোগাযোগ করেন। হাসপাটাল এবং রোগীর ম্যে কিছু অপকর্ম সংঘটিত হওয়ার কারনে রোগীর পরিবার আমাদের সাথে যোগাযোগ করে বলে জানান। বুরজীল হসপিটালের মেডিবেক ইউনিটের ডাইরেক্টর স্যানেট মায়ের জানান যে আব্দুল আত্তির বিভিন্ন চিকিৎসার মূল্যায়ন করে যা তার স্বাস্থগত পাশাপাশি তার সঠিক ওজন নির্ধারন করবে। তিনি আরও বলেন, রোগীর বর্তমানে একটি বিশেষ তরল খাদ্য ন্যাসোজুঞ্জাল টিউব দিয়ে খাওয়ানো হচ্ছে এবং এটি একটি বিশেষ বিছানা এয়ারপোর্টে পাঠানো হবে। বর্তমানে পুরো বাক্য বলতে না পারলেও সে কিছু কমন শব্দ বুঝতে পারেন , তিনি মানুষকে বোঝাবার কথা বলতে পারেন না, কিন্তু তিনি আদেশগুলি পালন করতে পারেন বলে জানান চিকিৎসকরা।

x

Check Also

ঈদে মিলাদুন্নবী (দঃ)হচ্ছে মুসলিম মিল্লাতের ঐক্যের প্রতীক,সূফি মিজান

হোসেন বাবলা:১৯নভেম্বর বন্দর নগরীতে নগর গাউছিয়া কমিটির উদ্যোগে পবিত্র মাহে রবিউল আউয়াল উপলক্ষে স্বাগত জানিয়ে ...