নিউইয়র্কে জনপ্রিয় হচ্ছে নগরকৃষি (ভিডিও)

যুক্তরাষ্ট্রের নিয়ইয়র্ক শহরে দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে আধুনিক চাষাবাদ। মাটি ছাড়াই ঘরের ভেতরে কৃত্রিম আলোতে সবুজ শাকসবজি উৎপাদন করে স্থানীয় মেটাতে সচেষ্ট হচ্ছেন কিছু তরুণ উদ্যোক্তা। এই নগরকৃষিকে জনপ্রিয় করতে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান। বিশ্ববিদ্যালয় পাস করা তরুণরাই বেশি আগ্রহী হয়ে উঠছেন এ ধরনের উদ্যোগে।
নিউইয়র্কের ব্রুকলিনে একটি গ্যারাজে তৈরি হয়েছে এমন একটি খামার। যেখানে কনটেইনারে উৎপাদিত হচ্ছে শাকসবজি। এখানে উৎপাদিত শাকসবজি এখন হাজার মাইল দূর থেকে আসা বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদিত ফসলকে টেক্কা দেয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে ।
এই শাকসবজিগুলো পুরোপুরি বদ্ধ জায়গায় সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণযোগ্য কৃত্রিম পরিবেশে উৎপাদন করা হয়। সূর্যালোকের বদলে কৃত্রিম আলো (সাইকেডেলিক লাইট), সেচের ব্যবস্থা করা হয় হাইড্রোপোনিক পদ্ধতিতে যেখানে পানিতে প্রয়োজনীয় খনিজ পদার্থ ও পুষ্টি উপাদান মেশানো থাকে।
৪৫ বছর বয়সী ব্রিটিশ টোবাইস পেগ ‘স্কয়ার রুট’ নামে একটি প্রতিষ্ঠানের সহপ্রতিষ্ঠাতা। তিনি একজন সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার, এখন কৃষক ও উদ্যোক্তা। টেসলা মটরসের বিলিয়নেয়ার মালিক এলন মাস্কের ভাই কিম্বাল মাস্কের সাথে যৌথভাবে এই প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তুলেছেন তিনি। গত নভেম্বর থেকে এখন পর্যন্ত তারা ১০ জনকে প্রশিক্ষণ দিয়েছেন।
ইউরোপের বিভিন্ন স্থানে বিশেষ করে নেদারল্যান্ডসে এই প্রযুক্তি সুপ্রতিষ্ঠিত। যুক্তরাষ্ট্রও এখন সে পথেই হাঁটছে ।
পেগ বলছেন, অর্ধবছরের শিক্ষানবিশী শেষে তার ১০ জন তরুণ উদ্যোক্তা এর মধ্যেই ক্রেতাদের চাহিদামত ফসল উৎপাদন করতে শিখে ফেলেছে ।
আর এক বছরের মধ্যেই এর পরের ধাপ শুরু হবে ।এই উদ্যোগটি সবজায়গায় ছড়িয়ে পড়ার আগেই ব্রুকলিনের মত পুরো যুক্তরাষ্ট্রের সব বড় বড় শহরগুলোতে ক্যাম্পাস তৈরি করা হবে।
তিনি বলেন, এখন আপনার বয়স যদি ২০ বছর হয় তাহলে শুনুন, ২০ বছর আগে খাবারের বিষয়টি ইন্টারনেটের চেয়ে বেশি বড় ছিল। এখন মানুষ একটি খাদ্য কেনার আগে নিশ্চিত হতে চায়, তারা কৃষক সম্পর্কে জানতে চায়।
পেগের এই উদ্দীপনা ছোঁয়াচে। এই সপ্তাহে প্রায় ১০০ জনের মত তার এই ফার্মগুলোতে গাইড ট্যুরে অংশ নিয়েছিল। তারা শুধু তাজা শাকসবজি কেনার উদ্দেশ্যেই যায়নি, এরকম কিছু গড়ে তোলার ধারণা নিতেও গিয়েছিল।
তবে এই ব্যবসায়িক মডেলের কিছু নেতিবাচক দিকও রয়েছে। স্ট্রবেরি, ব্লুবেরির মতো ফসলগুলো এখানে “কৃষিবিষয়ক জ্ঞান ছাড়া” উৎপাদন করা সম্ভব হলে তা স্বাভাবিক ফসল উৎপাদন পদ্ধতির (জমি চাষ) জায়গা নিয়ে নেবে।
এছাড়া বিট বা মূল জাতীয় ফসল যেগুলো ঘন হয়ে জন্মায় সেগুলো এই মুহূর্তে উৎপাদন করা সম্ভব হবে না। যদি হয়ও তবে প্রতি পিসের দাম পড়বে ৫০ ডলার করে।
এছাড়াও বদ্ধ পরিবেশে কাজ করাটাও কারো কাছে খুব একটা কাম্য নয়। কৃত্রিম আলো তৈরির খরচও প্রচুর।

x

Check Also

শাহরুখ-সালমানের সঙ্গে প্রথম অভিজ্ঞতার কথা শুনালেন আমির

বলিউডে খান মানেই শাহরুখ, সালমান, ও আমির খান। খান নামের আরো অভিনেতা থাকলেও খান নামের ...