কক্সবাজারের গভীর সমুদ্র হতে ২০ কোটি টাকা’র ইয়াবা ফিশিং ট্রলার এবং ০৫ জন মায়ানমারের নাগরিকসহ ৯ জনকে আটক

কক্সবাজার প্রতিনিধি সংবাদঃ১১ফ্রেব্রুয়ারী/চট্র;ব্যুরোঃ

মায়ানমার এবং এ দেশীয় চোরাচালানীদের বেশ কয়েকটি সংঘবদ্ধ মাদক ব্যবসায়ী চক্র মাছের ব্যবসার আড়ালে ইয়াবার চালান মায়ানমার হতে বাংলাদেশে নিয়ে আসার খবরে র‌্যাব তৎপর হয়ে সাম্প্রতিক সময়ে চট্টগ্রাম সমুদ্রে টহল জোরদার করে টেকনাফ থেকে চট্টগ্রাম রুটে অভিযান চালিয়ে ইয়াবার বেশ কয়েকটি বড় বড় চালান আটক করে।
এরই প্রেক্ষিতে র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে একটি মাদক সিন্ডিকেট ফিশিং ট্রলারের অন্তরালে বিপুল পরিমাণ ইয়াবা নিয়ে কক্সবাজারের দিকে আসার পথে গত ১০ ফেব্রুয়ারি গভীর রাত্র র‌্যাব-৭ অধিনায়ক লেঃ কর্নেল মিফতাহ উদ্দিন আহমদ এর নেতৃত্বে কক্সবাজারের গভীর সমুদ্রে একটি মাছ ধরার ট্রলারকে ধাওয়া করে আটক করে।

এ সময় ট্যুরিস্ট পুলিশ কক্সবাজারের একটি দল র‌্যাবকে সহায়তা করে। পরবর্তীতে আটককৃত ট্রলার (এফবি জানিবা খালেদ -১) তল্লাশী করে ট্রলারের মাছ রাখার প্রকোষ্ঠের ভিতর সুকৌশলে লুকানো ০৪ লক্ষ ৫০ হাজার পিস ইয়াবাসহ নি¤œবর্ণিত ০৮ জন আসামীদেরকে গ্রেফতার করা হয় । গ্রেফতারকৃত আসামীদের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, তারা মায়ানমার হতে ০৪ লক্ষ ৫০ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট নিয়ে কক্সবাজারের উদ্দেশ্যে যাত্রা করে। সাগরেই অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদে আরও জানা যায় যে, আটককৃত ইয়াবার মালিক মোঃ সুলতান আহম্মদ (৪০) পিতাঃ আবু বকর, গ্রামঃ দক্ষিন রোমানিয়ার ছড়া, পোঃ কক্সবাজার, থানাঃ কক্সবাজার, জেলাঃ কক্সবাজার। পরবর্তীতে র‌্যাব-৭ এর একটি আভিযানিক দল উক্ত ইয়াবার মালিক মোঃ সুলতান আহম্মদ’কে তার বাসায় অভিযান চালিয়ে ৫০,০০০ (পঞ্চাশ হাজার) পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত ০৯ জন আসামীর ০৫ জন মায়ানমারের নাগরিক। গ্রেফতারকৃত আসামীদের নামীয় পরিচয় নিুরূপ ঃ
১। মোঃ সুলতান আহম্মদ (৪০) পিতাঃ আবু বকর, গ্রামঃ দক্ষিন রোমানিয়ার ছড়া, পোঃ কক্সবাজার, থানাঃ কক্সবাজার, জেলাঃ কক্সবাজার (ইয়াবার মালিক)।
২। মোঃ মিজানুর রহমান (৪৭), পিতাঃ মৃত সামছুল হক, গ্রামঃ মালবাগান, পো+থানাঃ রামগড়, জেলাঃ খাগড়াছড়ি।
৩। মোঃ হাবিবুল্লাহ (৩৭) বার্মা, পিতাঃ নুর মোহাম্মদ, কুতুপালং ক্যাম্প উখিয়া, থানাঃ টেকনাফ, জেলাঃ কক্সবাজার।
৪। জাহিদ হোসেন (৩০), বার্মা, পিতাঃ মোঃ আব্দুল্লাহ, কুতুপালং ক্যাম্প উখিয়া, থানাঃ টেকনাফ, জেলাঃ কক্সবাজার।
৫। আব্দুর রউফ (৪৫), পিতাঃ আঃ মতলব, গ্রামঃ সুজনগ্রাম, পোঃ আলেকজান্ডার, থানাঃ রামগতি, জেলাঃ লক্ষীপুর (ইঞ্জিন চালক)।
৬। মোঃ জাহাঙ্গীর (১৯), বার্মা, পিতাঃ নুর বশর, গ্রামঃ মুন্সি পাড়া, মন্ডু।
৭। মোঃ আঃ হামিদ (২০), বার্মা, পিতাঃ সৈয়দ হোসেন, কুতুপালং ক্যাম্প উখিয়া, থানাঃ টেকনাফ, জেলাঃ কক্সবাজার।
৮। মোঃ আঃ রাজ্জাক মিয়া (৫৫), পিতাঃ আঃ গফুর, গ্রামঃ গয়েশপুর, পোঃ বৈরাতির হাট, থানাঃ মিঠাপুকুর, জেলাঃ রংপুর।
৯। মোঃ ওসমান গনি (২০) বার্মা, পিতাঃ আঃ রাজ্জাক, গ্রামঃ মুন্সি পাড়া, মন্ডু।

উদ্ধারকৃত ৫ লক্ষ ইয়াবা ট্যাবলেটের আনুমানিক মূল্য ২০ কোটি টাকা। গ্রেফতারকৃত আসামী এবং উদ্ধারকৃত ইয়াবা গুলো কে আইনী প্রক্রিয়া কক্সবাজার থানায় হস্তান্তর করে বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে পরবর্তী পদক্ষেপ নিবেন বলে র‌্যাব-৭পতেঙ্গা সদর দপ্তর সূত্রে জানা গেছে।

Loading Facebook Comments ...

Leave a Reply

x

Check Also

ট্রান্স-এশিয়ান রেলওয়ে; এক টিকিটে এশিয়ার দশটিরও বেশি দেশ ভ্রমণ

ট্রান্স-সাইবেরিয়ান রেলওয়ের কথা শুনেছেন অনেকেই। এটা নিয়ে হয়েছে মুভি, বই। হয়েছে ভ্রমণ কাহিনী। চীন থেকে ...