রাজধানীতে সাবওয়ে নির্মাণ: শুরুতেই জটিলতা

রাজধানীতে প্রস্তাবিত সাবওয়ে (মাটির নিচ দিয়ে) রুট নিয়ে সম্ভাব্যতা যাচাই প্রকল্প গ্রহণ করতে গিয়ে শুরুতেই বাধার সম্মুখীন হয়েছে কতৃপক্ষ। কেননা সাবওয়ের জন্য প্রাথমিকভাবে যে চারটি রুট নির্ধারণ করা হয়েছে সেগুলো আগেই মেট্রোরেলের জন্য নির্ধারণ করা হয়েছে।

এর পরিপ্রেক্ষিতে ডিটিসিএ’র সমীক্ষা প্রকল্প এবং রিভাইজড স্ট্রাটেজিক ট্রান্সপোর্ট প্ল্যান (আরএসটিপি) সমন্বয় করার তাগিদ দিয়েছে পরিকল্পনা কমিশন। সেইসঙ্গে উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাব সংশোধনের জন্য ফেরত পাঠাতে হয়েছে সেতু বিভাগে। বুধবার দৈনিক যুগান্তর পত্রিকায় ‘রাজধানীতে সাবওয়ে নির্মাণ: শুরুতেই রুট নিয়ে জটিলত’ শীর্ষক এক শিরোনামে এসব তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, সাবওয়ে নির্মাণে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় থেকে ‘ফিজিবিলিটি স্টাডি ফর কনস্ট্রাকশন অব সাবওয়ে (আন্ডারগ্রাউন্ড মেট্রো) ইন ঢাকা সিটি’- শীর্ষক একটি প্রকল্প প্রস্তাব করা হয় পরিকল্পনা কমিশনে। জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় অনুমোদন পেলে চলতি বছর থেকে ২০১৮ সালের জুনের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ।

সাবওয়ের জন্য প্রাথমিকভাবে নির্ধারিত চারটি রুটের মধ্যে রুট-১ হল- টঙ্গি-বিমানবন্দর-কাকলী-মহাখালী-মগবাজার-পল্টন-শাপলা চত্বর-সায়েদাবাদ-নারায়ণগঞ্জের সাইনবোর্ড পর্যন্ত ৩২ কিলোমিটার। কিন্তু এ অংশ অনুমোদিত রিভাইজড স্ট্র্যাটেজিক ট্রান্সপোর্ট প্ল্যানের (আরএসটিপি)(২০১৫-৩৫) অনুযায়ী বিমানবন্দর-খিলক্ষেত-বাড্ডা-রামপুরা-মালিবাগ হয়ে কমলাপুর পর্যন্ত এমআরটি-১-এর জন্য প্রাক-সম্ভাব্যতা যাচাই সম্পন্ন হয়েছে। সেখানে সাবওয়ে নির্মাণ হবে কীভাবে।

একইভাবে সাবওয়ের রুট-২ হল- আমিনবাজার-গাবতলী-আসাদগেট-নিউমার্কেট-টিএসসি-ইত্তেফাক ও সায়েদাবাদ, সাবওয়ে রুট-৩ হল- গাবতলী-মিরপুর-১-মিরপুর-১০-কাকলী-গুলশান-২-নতুনবাজার-রামপুরা টিভি ভবন-খিলক্ষেত-শাপলা চত্বর-জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ও কেরানীগঞ্জ পর্যন্ত, রুট-৪ হল- রামপুরা টিভি ভবন-নিকেতন-তেজগাঁও-সোনারগাঁও-পান্থপথ-ধানমণ্ডি-২৭-রায়েরবাজার-জিগাতলা-আজিমপুর-লালবাগ ও সদরঘাট পর্যন্ত। কিন্তু প্রস্তাবিত প্রতিটি রুটের সাথে এমআরটি-১, এমআরটি-২ ও এমআরটি-৫ এর রুট জটিলতা দেখা দিয়েছে।

জটিলতা নিরসনে ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষের বাস্তবায়নাধীন সম্ভাব্য সমীক্ষা প্রকল্পের রুটের সঙ্গে সেতু বিভাগের প্রস্তাবিত রুটের দ্বৈততা পরিহার করে উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাব (ডিপিপি) পুনর্গঠনের সুপারিশ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ঢাকা শহরে যানজটের কারণে প্রতিবছর প্রায় ৫৫ হাজার কোটি টাকার ক্ষতি হয়। এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণের জন্য সেতু বিভাগ ঢাকা শহরে সাবওয়ে (আন্ডারগ্রাউন্ড মেট্রো) নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। সড়কপথে যেখানে ১০০ বাস ঘণ্টায় ১০ হাজার যাত্রী চলাচল করতে পারে, সেখানে একই পরিমাণ বাসে সাবওয়েতে ঘণ্টায় ৬০ হাজার যাত্রী চলাচল সম্ভব। মাটির নিচে সাবওয়ে নির্মাণ হলে জনসংখ্যার একটি বড় অংশ মাটির নিচ দিয়ে চলাচল করতে পারবে। ফলে ভূমির ওপর জনসংখ্যার চাপ কমবে এবং যানজট হ্রাস পাবে।

Loading Facebook Comments ...

Leave a Reply

x

Check Also

রাজধানীতে ঈদের জামাত অনুষ্ঠানে চার স্তরের নিরাপত্তা : ডিএমপি কমিশনার

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার মো: আছাদুজ্জামান মিয়া বলেছেন, জাতীয় ঈদগাহে পবিত্র ঈদ-উল-ফিতরের জামাতে মুসল্লিরা ...