চট্টগ্রামে গ্যাসনির্ভর সকল বিদ্যুৎকেন্দ্রে উৎপাদন বন্ধ – দৈনিক ইত্তেফাক

চট্টগ্রামে গ্যাসনির্ভর সব বিদ্যুৎকেন্দ্রে উৎপাদন বন্ধ হয়ে গেছে। বিদ্যুৎকেন্দ্রের বরাদ্দ গ্যাস সিইউএফএল সার কারখানায় সরবরাহ দেওয়ায় এই সংকটের সৃষ্টি হয়েছে। চট্টগ্রামে গ্যাসনির্ভর বিদ্যুৎকেন্দ্রের চারটি ইউনিটে গ্যাসের দৈনিক চাহিদা প্রায় ১৫০ মিলিয়ন ঘনফুট। এসব বিদ্যুৎকেন্দ্রে দৈনিক ৬৩০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের সক্ষমতা রয়েছে।

মঙ্গলবার দৈনিক ইত্তেফাক-এ  ‘চট্টগ্রামে গ্যাসনির্ভর সকল বিদ্যুৎকেন্দ্রে উৎপাদন বন্ধ’ শীর্ষক প্রতিবেদনে এসব তথ্য রয়েছে।

বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি) সূত্রের বরাত দিয়ে ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, গত ২ ফেব্রুয়ারি বিদ্যুৎকেন্দ্রে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এরপর থেকে রাউজান বিদ্যুৎকেন্দ্রের ২টি ইউনিট, শিকলবাহায় ১৫০ ও ৬০ মেগাওয়াটের ২টি ইউনিটে বিদ্যুৎ উৎপাদন বন্ধ রয়েছে। অলস সময় কাটাচ্ছেন বিদ্যুৎকেন্দ্রের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

চট্টগ্রাম বিদ্যুৎকেন্দ্রের (উৎপাদন) প্রধান প্রকৌশলী নিখিল চৌধুরী জানান, এসব মেশিন দীর্ঘদিন বন্ধ থাকলে নানা জটিলতার দেখা দেয়। পরে কবে গ্যাস দেওয়া হবে তা জানানো হয়নি। বন্ধের মধ্যে ডিজেল ও পানি দিয়ে মেশিন, বয়লারসহ গুরুত্বপূর্ণ যন্ত্রাংশ তদারকি করতে হচ্ছে।

চট্টগ্রামে দীর্ঘদিন যাবত গ্যাস সংকট বিরাজ করছে। শিল্প-বাণিজ্যিক ও আবাসিক সকল খাতে নতুন সংযোগ প্রদান বন্ধ রয়েছে। গত এক মাস যাবত নগরীতে সরবরাহ লাইনে চাপ কমে যাওয়ায় আবাসিক গ্রাহকদের চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। দিনের বেলায় জ্বলছে না রান্নার চুলা।

বর্তমানে দৈনিক গ্যাসের চাহিদা বেড়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় ৫০০ মিলিয়ন ঘনফুট। আর দৈনিক বরাদ্দ পাওয়া যাচ্ছে ২৩০ মিলিয়ন ঘনফুট। চট্টগ্রামের গ্যাসের বৃহৎ গ্রাহক হচ্ছে কাফকো ও সিইউএফএল। এই দুটি কারখানায় দৈনিক ১১০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাসের চাহিদা রয়েছে।

Loading Facebook Comments ...

Leave a Reply

x

Check Also

কো-ইন্সিডেন্স ।|দুই চৌকস পুলিশ কর্মকর্তাসহ ঈদের খুশীতে একসাথে মিলল চার মহিউদ্দিন !!!!

মেহগনি রঙের কাঠের চেয়ারে পাঞ্জাবি-পায়জামা ও মাথায় টুপি পরে বসে আছেন সত্তর বছরেরও বেশি এক ...