সকল ধর্মাবলম্বীদের জন্যে খুলে দেয়া হবে বৃটেনের দেড় শতাধিক মসজিদ

এই সপ্তাহান্তে বৃটেনের বিভিন্ন জায়গায় থাকা ১৫০টিরও বেশি মসজিদ সকল ধর্মাবলম্বী দর্শনার্থীদের জন্যে দরজা খুলে দেয়া হবে। ইসলাম সম্বন্ধে আরো পরিষ্কার, স্পষ্ট ধারণা লাভ করা ও ইসলামী বিশ্বাস নিয়ে প্রশ্ন করার সুযোগ দেয়ার জন্য তৃতীয়বারের মতো এ পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। গার্ডিয়ানের খবরে বলা হয়, বৃটেনের ইনভার্নেস শহর থেকে প্লাইমাউথ শহর পর্যন্ত এই তৃতীয় বার্ষিক ‘ভিজিট মাই মস্ক’ আয়োজনে অংশগ্রহণ করবে হাজার হাজার দর্শনার্থী। এই কার্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত বেশির ভাগ মসজিদই বৃটেনের মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ শহরগুলোতে অবস্থিত। তবে শ্রোফশায়ার-এর ক্রেভেন আর্মস, উত্তর ওয়েলস এর ব্যাঙ্গর, বেলফাস্ট এবং প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে’র নির্বাচনী আসন মেইডেনহেড-এর মতো মুসলিম সংখ্যালঘু শহরগুলোও এবারের আয়োজনে থাকছে।
ইসলাম সম্বন্ধে পরিষ্কার ধারণা দেয়া ছাড়াও এই আয়োজনের আরো অনেক উদ্দেশ্য রয়েছে। দর্শনার্থীদের কাছে ইসলামী বিশ্বাস, প্রার্থনা প্রক্রিয়া, মুসলিমদের প্রাত্যহিক জীবনে ইসলাম ধর্মের প্রভাব ব্যাখ্যা করা হবে। মসজিদগুলো খাদ্য বণ্টন, গৃহহীনতা ও শরণার্থী সম্পর্কিত যেসব সামাজিক প্রকল্পের সঙ্গে যুক্ত সেসবের প্রদর্শনী হবে। দান করা (যাকাত) ইসলামের পাঁচটি মূল ভিত্তির একটি। গত রমজানে বৃটিশ মুসলিমরা দাতব্যখাতে প্রায় ১০ কোটি ইউরো দান করেছেন।
সাতটি মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশের নাগরিক ও সকল সিরীয় শরণার্থীর যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ নিষেধ করে ডনাল্ড ট্রাম্পের নির্বাহী আদেশ জারি ও কানাডার কুইবেক শহরের একটি মসজিদে হামলা হওয়ার পরপরই এ বছরের এই আয়োজন করা হচ্ছে। মসজিদ কর্তৃপক্ষ আশা করছেন যে, অন্য ধর্মাবলম্বীরা এই আয়োজনটিকে ক্রমবর্ধমান ইসলামভীতির বিরুদ্ধে সংহতি প্রকাশের সুযোগ হিসেবে গ্রহণ করবে।
মুসলিম কাউন্সিল অব বৃটেনের মহাসচিব হারুন খান বলেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কথিত মুসলিম নিষেধাজ্ঞা ও কানাডার মসজিদে গণহত্যার ঘটনায় আমাদের জন্যে যে বিষাক্ত পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছে, সে পরিস্থিতিতে এই আয়োজন অতি প্রয়োজনীয় এক প্রতিষেধক। সকল বৃটিশ জনগণ, মুসলিম, অমুসলিম সবার এই আয়োজনে একসাথে এসে নতুন মিত্রতার বন্ধন গড়ে তোলার সুযোগ রয়েছে।
তিনি যোগ করেন, আমাদের এই বৈচিত্র্যময় সম্প্রদায়ে সতির্থ যুক্তরাজ্যবাসীদের আমন্ত্রণ জানানোর জন্যে, ভিজিট মাই মস্ক দিবস আমাদের জন্য একটি পরম সুযোগ। গত বছরগুলিতে এই আয়োজনে বৃটিশ জনগণের অংশগ্রহণ আমাদের অভিভূত করেছিল। কেউ কেউ তাদের স্থানীয় মসজিদ খুঁজতে মাইলের পর মাইল ভ্রমণ করেছিলেন। প্রত্যেক বছর ধর্মবর্ণ নির্বিশেষে বৃটিশদের নিমন্ত্রণ জানাতে এই আয়োজনে অংশগ্রহণ করা সকল মসজিদ কর্তৃপক্ষের উদ্যম বেড়েই চলছে।
লিডস গ্র্যান্ড মস্কের একজন মুখপাত্র বলেন, যুক্তরাজ্যে ইসলাম ও মুসলিমদের বিরুদ্ধে ঘৃণাপ্রসূত অপরাধের (হেট ক্রাইম) বৃদ্ধি নিয়ে আমরা চিন্তিত। তিনি আরো বলেন, ভিজিট মাই মস্ক দিবস, আমাদের দৃষ্টিকোণ থেকে ইসলামিক বিশ্বাস সম্বন্ধে ধারণা লাভ করার একটি সুযোগ। বিশেষ করে অমুসলিমদের জন্যে। ইসলামিক যে শিক্ষা তারা লাভ করে তা শুধুমাত্র মিডিয়া থেকে আসা শিক্ষা।
দ্য ইয়র্কশায়ার ইভনিং পোস্ট পত্রিকাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ওই মুখপাত্র বলেন, মসজিদটি সকল স্তরের মানুষকে আকৃষ্ট করার আশা করছে। যুবক-প্রবীণ, কালো-সাদা, নারী-পুরুষ- সকলকে। যাতে তারা ইসলামিক মূল্যবোধ ও ইসলাম  সম্বন্ধে সত্যিকারের জ্ঞান অর্জন করতে পারে।
ওলভার হ্যাম্পটনের বিশপ ক্লাইভ গ্রেগরি বলেন, তিনি দুটি স্থানীয় মসজিদ দর্শন করবেন। তিনি বলেন, বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে সম্প্রদায়গুলোর মধ্যে দেয়াল না গড়ে সংযোগ গড়ে তোলা উচিত।  ভিজিট  মাই মস্ক দিবস সংযোগ স্থাপনের জন্যে একটি চমৎকার সুযোগ আর আমি সকল স্থানীয় খ্রিষ্টানদের অনুরোধ করবো যেন তারা এতে অংশগ্রহণ করেন এবং স্থানীয় মুসলিমদের সঙ্গে বন্ধন আরো জোরদার করেন।
গ্লুচেস্টারশায়ার ইসলামিক ট্রাস্ট মস্কের প্রতিনিধি সাইদ হ্যান্সদট বলেন, আমরা এই আয়োজনে সবাইকে এটা দেখাতে নিমন্ত্রণ জানাতে চাই যে আমরা তাদের চেয়ে ভিন্ন নই। আমরা কোন ভিনগ্রহের বাসিন্দা নই; এই জায়গাটা (মসজিদ) হচ্ছে আমাদের প্রার্থনা করার জায়গা। গ্লুচেস্টারশায়ার লাইভকে দেয়া এক বক্তব্যে তিনি বলেন, আমরা কাউকে ফিরিয়ে দেইনা আর আমরা সবার সাথে এক হয়ে থাকতে চাই।
তেরেসা মে’র নির্বাচনী এলাকার মেইডেনহেড মসজিদের জিয়া মাহিউদ্দিন বলেন, তারা আগামী রোববার শ’শ’ দর্শনার্থীকে স্বাগত জানানোর প্রত্যাশায় আছেন। গত বছরের জুন মাসে, রমজানের সময় প্রধানমন্ত্রী মে এই মসজিদটি পরিদর্শন করেছিলেন।
উল্লেখ্য, মসজিদটির নকশা এঁকেছিলেন একজন ইহুদি স্থপতি। মেইডেনহেডের সাপ্তাহিক স্থানীয় পত্রিকা দ্য মেইডেনহেড এডভার্টাইজার’কে দেয়া এক বক্তব্যে মাহিউদ্দিন বলেন, যখনই আমরা আমাদের অনুষ্ঠান নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করি, বেশির ভাগ সময় ৯০ শতাংশের মত মানুষ পোস্টটি ইতিবাচক হিসেবে দেখে। কিন্তু তবুও কিছু মানুষ আছে যারা আমাদের নানা বাজে কথা বলে। মিডিয়ায় বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতির প্রেক্ষিতে মানুষ এ বিষয়ে সচেতন হয়ে উঠছে। তারা আরো জানতে চায়। এ ধরনের আয়োজন প্রতিবন্ধকতা দূর করে সবাইকে একসাথে নিয়ে আসে।
এবারের আয়োজনে অংশ নেয়া মসজিদের সংখ্যা গত বছরে অংশগ্রহণ করা মসজিদের সংখ্যার (৮০) প্রায় দ্বিগুণ।

Loading Facebook Comments ...

Leave a Reply

x

Check Also

চীনে পৌঁছলেন বাংলাদেশের সুন্দরী জেসিয়া

এক মাসের অভিযাত্রায় গতকাল ১৯ অক্টোবর দিবাগত রাত ১২টা ৫০ মিনিটে ঢাকা থেকে চীনের উদ্দ্যেশ্যে ...