সপ্তাহে ৬ দিন খোলা থাকবে চট্টগ্রাম বন্দর ও কাস্টমস

আমদানি-রফতানি সুবিধার জন্য চট্টগ্রাম বন্দর ও কাস্টম হাউস সপ্তাহের ছয় দিন খোলা রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে। পণ্য পরিবহনে খরচ সাশ্রয় করতে এবং অনিয়ম কমিয়ে আনতে দুই প্রতিষ্ঠান একত্রে আরও ১৪টি নতুন সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এসব সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে সুপারিশ আকারে পাঠানো হবে অর্থ মন্ত্রণালয় ও নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিবের কাছে। তাদের মাধ্যমে দুই মন্ত্রীর অনুমোদন নিয়ে বাস্তবায়ন করা হবে সিদ্ধান্তগুলো। রাজস্ব বোর্ডের উদ্যোগে গতকাল বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম বন্দর প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে বন্দর ব্যবহারকারীদের সঙ্গে চার ঘণ্টাব্যাপী বৈঠকে এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। ব্যবহারকারীদের সঙ্গে আলোচনা শেষে এসব সিদ্ধান্ত পড়ে শোনান রাজস্ব বোর্ডের সদস্য ফরিদ উদ্দিন।

বন্দর ও কাস্টম হাউসের কার্যক্রমে সমন্বয় আনতে বৈঠকে বন্দরের পর্ষদ সদস্য (হারবার ও মেরিন) পদের কর্মকর্তাকে আহ্বায়ক করে একটি মনিটরিং কমিটি গঠন করারও সিদ্ধান্ত হয়েছে। এই কমিটি আমদানিপণ্য দ্রুত খালাসের জন্য সমস্যা চিহ্নিত করে সমাধান দেওয়াসহ পরিচালন কার্যক্রম গতিশীল করতে পদক্ষেপ নেবে। কমিটিতে ব্যবহারকারী সংগঠনগুলোর প্রতিনিধিদেরও রাখা হবে। প্রতি ১৫ দিন পর হবে এ কমিটির বৈঠক। এ ছাড়া যেসব সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট সবচেয়ে বেশি অনিয়ম করবে, যে কাস্টমস কর্মকর্তারা বার বার ভুল করেন এবং যেসব পণ্যে সবচেয়ে বেশি অনিয়ম হয় সেসব চিহ্নিত করে ঝুঁকি ব্যবস্থাপনার আওতায় আনার সিদ্ধান্ত হয়। নিলামপণ্য দ্রুত বিক্রি, কনটেইনার পণ্য পরীক্ষার জন্য স্ক্যানিং যন্ত্র স্থাপন, বন্দরের যন্ত্রপাতি ক্রয়, মহাসড়কের ওজন সেতুর সঙ্গে কাস্টমসের অনলাইন পদ্ধতির সংযোগস্থাপন বিষয়েও সিদ্ধান্ত হয়েছে। ভালো কাজের জন্য কাস্টমস কর্মকর্তাদের পুরস্কার দেওয়া হবে বলেও সিদ্ধান্ত হয়েছে বৈঠকে।

বৈঠকে বন্দর চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল এম খালেদ ইকবাল, নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব বেগম জিকরুর রেজা খানম, শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক হোসাইন আহমদ, কাস্টমস কমিশনার এ এফ এম আবদুল্লাহ খান, চেম্বারের পরিচালক মাহফুজুল হক শাহ, শিপিং এজেন্টস অ্যাসোসিয়েশনের পরিচালক সাহেদ সরওয়ারও বক্তব্য রাখেন। বৈঠকে বন্দর ব্যবহারকারী সংগঠনগুলোর প্রতিনিধিরা নিজেদের সমস্যা তুলে ধরেন।

বৈঠকে ব্যবহারকারীরা জানান, বর্তমানে বন্দরের পরিচালন কার্যক্রম দিন-রাত ২৪ ঘণ্টা খোলা থাকলেও প্রশাসনিকসহ অন্যান্য কার্যক্রম সপ্তাহে পাঁচদিন খোলা থাকে। আবার কাস্টম হাউসে রফতানি কার্যক্রম সাত দিন সচল থাকলেও আমদানি কার্যক্রম সাধারণত পাঁচ দিন সচল রয়েছে। এ কারণে সার্বক্ষণিক খোলা না থাকায় পণ্য খালাসেও বিলম্ব হয়। ব্যবহারকারীদের এ দাবির পর নতুন এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এটি বাস্তবায়ন হলে শনিবারও খোলা থাকবে।

Loading Facebook Comments ...

Leave a Reply

x

Check Also

আল খিদমাতুল ইসলামিয়া বাংলাদেশের খতমে গাউছিয়া ও আলোচনা সভা

প্রেসবিজ্ঞপ্তী:২১জুলাই নগরীর ইপিজেড থানাধীন আকমল আলী রোডস্থ এলাকায় গাউছিয়া কমিটি গঠন কল্পে আল খিদমাতুল ইসলামিয়া ...