জামায়াতকর্মী সন্দেহে আটক ২৮ নারী রিমান্ডে

বিশেষ ক্ষমতা আইনে দায়ের করা মামলায় রাজধানীর মোহাম্মদপুর থেকে আটক জামায়াতের ২৮ নারী সদস্যের দুই দিন করে রিমান্ড দিয়েছেন আদালত।

আজ শুক্রবার বিকালে তাদের ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করে ৭ দিনের রিমান্ড চান মোহাম্মদপুর থানা পুলিশের পরিদর্শক শরিফুল ইসলাম। শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম দেলোয়ার হোসেন প্রত্যেকের দুইদিন করে রিমান্ড আবেদন মঞ্জুর করেন।

এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে মোহাম্মদপুরের তাজমহল রোডের ১১/৭ নম্বর বাসায় গোপন বৈঠকের সময় জামায়াতের নারী শাখার ২৮ সদস্যকে আটক করে পুলিশ।

মামলার এজাহার অনুযায়ী গ্রেপ্তার করা মহিলা জামায়াতের ২৮ জন হলেন- ১. শাহনাজ বেগম (৫৬-সেক্রেটারি বা সভানেত্রী) ২. নাইমা আক্তার (৫৫-রুকন) ৩. উম্মে খালেদা (৪০-কর্মী) ৪. জোহরা বেগম (৩৫-রুকন) ৫. সৈয়দা শাহীনা আক্তার (৪০-রুকন) ৬. উম্মে কুলসুম (৪২-সাথী) ৭. জেসমিন খান (৪৩-রুকন) ৮. খোদেজা আক্তার (৩২ ‍-সাথী) ৯. সালমা হক (৪৫-রুকন) ১০. সাকিয়া তাসলিম (৪৭-রুকন) ১১. সেলিমা সুলতানা সুইটি (৪৮-রুকন) ১২. হাফসা (৫৫-রুকন) ১৩. আকলিমা ফেরদৌস (৩৭-রুকন) ১৪. রোকসানা বেগম (৫১-সদস্য) ১৫. আফসানা মিমি (২৫-কর্মী) ১৬. শরীফা আক্তার (৫৩-সদস্য) ১৭. রুবিনা আক্তার (৩৮-রুকন) ১৮. তাসলিমা (৫২-সদস্য) ১৯. আসমা খাতুন (৩৫-রুকন) ২০. সুফিয়া (৪১-সমর্থক) ২১. আনোয়ারা বেগম (৪৬-রুকন) ২২. ইয়াসমিন আক্তার (৪১-কর্মী) ২৩. সাদিয়া (৪৫-সমর্থক) ২৪. ফাতেমা বেগম (৫১-সমর্থক) ২৫. উম্মে আতিয়া (৪৬-রুকন) ২৬. রুমা আক্তার (৩২-রুকন) ২৭. রাজিয়া আক্তার (৪২-সমর্থক) ২৮. রহিমা খাতুন (৩০-রুকন)।

আজ শুক্রবার সকালে মোহাম্মদপুর থানায় এক সংবাদ সম্মেলনে পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের ডিসি বিপ্লব কুমার সরকার জানান, নাশকতার উদ্দেশ্যে এসব নারী এক হয়েছিলেন। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর ২টা থেকে আড়াইটার মধ্যে তাজমহল রোডের একটি বাসার (১১ /৭) দ্বিতীয় তলা থেকে এই ২৮ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ওই বাড়িতে গেলে তারা ভেতর থেকে দরজা বন্ধ করে দেন। পরে পুলিশ দরজা ভাঙতে গেলে তারা খুলে দেন। এ সময় তাদের কাছ থেকে জামায়াতে ইসলামীর কর্মীদের উদ্দেশে ছাপানো ৫০টি ও অন্য আরও ৭০টি লিফলেট, সংগঠনের মাসিক রিপোর্ট ফরম ২২৫টি, গোলাম আযমের লেখা তিনটি এবং মতিউর রহমান নিজামীর লেখা একটি বই উদ্ধার করা হয়।

তিনি জানান, দীর্ঘদিন থেকে ওই বাসায় গোপন বৈঠকে মিলিত হচ্ছিলেন জামায়াতের মহিলা রোকনরা। আটক হওয়া নারীরা নাশকতার মাধ্যমে সরকার উৎখাতের পরিকল্পনা করছিল। জিজ্ঞাসাবাদে কেউ কেউ প্রকৃত পরিচয় গোপনের চেষ্টা করছিল। আটক নারীরা সবাই উচ্চ শিক্ষিত। তাদের মধ্যে স্কুল-কলেজের শিক্ষক, ডাক্তার রয়েছেন।

Loading Facebook Comments ...

Leave a Reply

x

Check Also

কষ্টের সময়গুলো পার করে সফল হয়ে ওঠা আত্মবিশ্বাসেরই ফসল : সজীব ওয়াজেদ জয়

বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্র সজীব ওয়াজেদ জয় বলেছেন, কষ্টের সময়গুলো পার করে সফল হয়ে ওঠা তার আত্মবিশ্বাসের ...