নন-ক্যাডার নিয়োগে বৈষম্যের শিকার ৮৯৮ জন

৩৪তম বিসিএসে উত্তীর্ণ ৮৯৮ জনকে নন-ক্যাডারে নিয়োগ নিয়ে চরম বৈষম্যের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগের জন্য তারা পিএসসির সুপারিশ পেয়েছেন। তবে, নির্ধারিত জাতীয় বেতন-স্কেলের দশম গ্রেডে ১৬ হাজার টাকা বেতনের পরিবর্তে, এর দুই ধাপ নিচে অর্থাৎ, ১১ হাজার ২০০ টাকার স্কেলে বেতন পাবেন।

বুধবার সমকালে প্রকাশিত ‘নন-ক্যাডার নিয়োগে চরম বৈষম্য’ শীর্ষক বিশেষ প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, সহকারী উপজেলা/থানা শিক্ষা কর্মকর্তা পদটি বর্তমানে দশম গ্রেডের। তারা মূলত সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন করে থাকেন। প্রধান শিক্ষকদের পদ সম-গ্রেডের হলে জটিলতা সৃষ্টি হতে পারে। এ কারণে এখন বিসিএসে উত্তীর্ণদের ক্ষেত্রেও একই নিয়ম বাস্তবায়ন করতে চাইছে মন্ত্রণালয়।

গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের শীর্ষ এক কর্মকর্তা বলেন, ‘বর্তমানে সারাদেশে প্রায় সাড়ে ১৬ হাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক নেই। বিসিএসে উত্তীর্ণদের এ পদে নিয়োগ দেওয়া হলে ৮৯৮টি বিদ্যালয়ে যোগ্য প্রধান শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া যাবে। এতে তারা খুশিই হয়েছিলেন। এখন বেতন-ভাতা নিয়ে জটিলতা তৈরি হয়ে গেল’।

Loading Facebook Comments ...

Leave a Reply

x

Check Also

‘মেক দ্য মুন গ্রেট অ্যাগেইন’ !

ক্ষমতা গ্রহণের বেশ আগে থেকে ‘ভিন্ন’ চরিত্র আর ‘ব্যতিক্রম’ এক মানুষ হিসাবে বরাবরই আলোচনায় ছিলেন ...