চট্রগ্রামে পরিবহন ব্যবস্থায় শৃংখলা ফিরিয়ে আনতে পরিত্যাক্ত জায়গায় পার্কিংয়ের উদ্যোগ নেওয়া হবে, সিটি মেয়র

নিজস্ব প্রতিবেদক :চট্টগ্রাম-২৯জানুয়ারী :
চট্টগ্রামের সড়কে পরিবহন নৈরাজ্য বন্ধ এবং যানযট নিরাসন, চালক-সহকারী,শ্রমিকদরে নির্যাতন ও অহেতুক চাদাঁবাজী প্রতিরোধে সিটি মেয়র আ.জম.নাছির উদ্দিন,পুলিশ কমিশনার ইকবাল বাহার,বি আর টিএকর্মকর্তা মোঃ শহীদুল আলমের সাথে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন,মালিক-শ্রমিক পরিষদ এক মতবিনময় সভা ২৯জানুয়ারী সকাল সাড়ে১১টায় নগর ভবনে অনুষ্ঠিত হয়।
সভায় মেয়র নাছির শ্রমিক ও মালিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘ রাজনৈতিক প্রভাব বিস্তার করে কিছু লোক বিভিন্ন হুমকি ধমকি দিয়ে চট্রগ্রাম শহরে ও জেলা হাইওয়েতে চরম নৈরাজ্য সৃৃষ্টি করে পরিবহন জগত কে বিশৃংখলায় এনে দেশ কে অস্থির করার অপচেষ্টা করছেন।
আমি বলি,আইন মানুষের জন্যই,আইনের জন্য মানুষ নহে।তাই শ্রমিকরা যেন সড়কে নির্যাতিত না হয় এবং কল্যান তহবিলের নামে অহেতুক চাদা ঁনা তুলে তার জন্য মালিক-শ্রমিক ঐক্য হয়ে কাজ করতে হবে। তিনি শহরের যানযট নিরাসনে অচিরেই পরিত্যাক্ত জায়গাই বাস-ট্রাক পাির্কংয়ের উদ্যোগ গ্রহনের ঘোষনা দেন।
পুলিশ কমিশনার ইকবাল বাহার বলেন,জেলার জন্য রেজিস্ট্রেশন নিয়ে মেট্রাতে গাড়ী চালানোর অবৈধ পারমিশন বন্ধ এবং বিগত কয়েকবছর পূর্বে ক্রয়কৃত গাড়ীশহরে চলতে দিবেন না বলে চুড়ান্ত ভাবে জানিয়ে দেন।তিনি পরিবহন শ্রমিক-মালিকদের বৈধ ড্রাাইভার দিয়ে গাড়ী চালানো এবং চট্রগ্রামে প্রায় ২৭০০ সিএনজি গাড়ী হিসাব বিহীন গুলোকে মেট্রাতে কোন ভাবেই চলতে দেয়া হবে ন্ া।
তিনি আরো বলেন,৬মাস থেকে ১বছরের মধ্যে রেজিং দেয়া গাড়ী ছাড়া বাকী গুলোকে অবৈধ তালিকায় এনে দ্রুত নিবন্ধন করার কথা জানান। আর সড়কে পুলিশ প্রশাসনের অহেতুক নির্যাতনের অভিযোগ হলে তবে তা প্রমাণ হলেই ব্যবস্থা নিতে নির্দেম দেন।এছাড়া যেখানে সেখানে গাড়ী না দাড়াতে অনুরোধ জানান। তিনি আরো বলেন,পুলিশ ভালো ভাবে আইন প্রয়োগ করলে সড়কে ৯০% গাড়ী থাকবে না বলে পরিস্কার ভাবে জানান॥
সভাতে আরো বক্তব্য রাখেন-বিআরটিএ, কর্মকর্তা-মোঃ শহীদলু আলম,উপ পুলিশ কমিশনার-দেবদাশ ভট্রাচার্য্য,শ্রমিকনেতা-মৃনাল দাশ,কেন্দ্রিয় শ্রমিক নেতা-শফর আলী,হাজী রুহুল আমিন,আব্দুন নবী লেদু,রবিউল মাওলা,নজরুল ইসলাম,মোঃহারুণ উর রশিদ,জসিম উদ্দিন,শ্রমিক নেতা-আব্দুর রহিম সাজু,জয়নাল আবেদীন সহ বিভিণœ আঞ্চলিক ¤্রমিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ।
এর আগে গত ১৮/১৯ জানুয়ারীতে বৃহত্তর চট্টগ্রামের সড়কে পরিবহন নৈরাজ্য বন্ধ চালক-সহকারী,শ্রমিকদরে পুলিশি নির্যাতন এর ৯দফা দাবিতে ধর্মঘট আহবান করেছিলেন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন,মালিক-শ্রমিক পরিষদ ।

Check Also

ম্যানচেস্টারে বোমা হামলায় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর নিন্দা

যুক্তরাজ্যের ম্যানচেস্টারে বোমা হামলায় হতাহতের ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। মঙ্গলবার বাংলাদেশ সময় সকাল সাড়ে …

Loading Facebook Comments ...

Leave a Reply