‘ভারত যেন বারবার ডাকে’

টেস্ট অভিষেক হওয়ার পর বিভিন্ন কারণে ভারত তাদের মাটিতে টেস্ট খেলতে বাংলাদেশকে আমন্ত্রণ জানায়নি। এর অন্যতম একটি কারণ বাণিজ্যিক। বাংলাদেশকে আমন্ত্রণ জানালে বাণিজ্যিকভাবে লাভবান হবে না ভারত, এমন ‘শঙ্কা’ তাদের। শঙ্কা কাটিয়ে ভারত বাংলাদেশকে টেস্ট খেলতে আমন্ত্রণ জানিয়েছে। আগামী ৯ ফেব্রুয়ারি ভারতের বিপক্ষে তাদের মাটিতে প্রথমবার টেস্ট খেলবে বাংলাদেশ। বিশ্লেষকদের মতে, এই সিরিজ দিয়ে নতুন সম্ভাবনার দার উন্মোচিত হলো!

ভারত সফরের সুযোগটি শতভাগ কাজে লাগাতে চায় বাংলাদেশ। বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম সরাসরি জানিয়ে দিলেন, এমনভাবে পারফর্ম করতে হবে যেন ভারত বাংলাদেশকে বারবার আমন্ত্রণ জানায়। ভারত সফর নিয়ে বুধবার অনুশীলনের ফাঁকে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হন টাইগার দলপতি।

প্রশ্ন: ভারতের বিপক্ষে স্কোয়াড কেমন হলো?
মুশফিকুর রহিম: যে কজন খেলোয়াড় আছে কম-বেশি সবাই নিউজিল্যান্ডে খেলে এলাম। সব কিছু বিবেচনা করে, যারা ফর্মে আছে তাদেরকেই দলে নেওয়া হয়েছে। আমার মনে হয় যে স্কোয়াড দেওয়া হয়েছে, এটাই বাংলাদেশের এখনকার সেরা স্কোয়াড।

প্রশ্ন: ভারতের বিপক্ষে লক্ষ্য কী থাকবে?
মুশফিকুর রহিম: লক্ষ্য তো থাকবেই। প্রত্যেকটা ম্যাচে, ডে বাই ডে উন্নতি করার চেষ্টা থাকবে। গত দুই বছরে সীমিত ওভারের ক্রিকেটে দারুণ ক্রিকেট খেলছি আমরা। কিন্তু টেস্টে অতটা ভালো হচ্ছিল না। তবে গত দুই সিরিজে টেস্টেও আমরা ভালো খেলেছি। কিন্তু দুটি সিরিজে সীমিত ওভারে আমাদের খুব একটা ভালো হয়নি। তারপরও কিছু ব্যক্তিগত ভালো পারফরম্যান্স ছিল। তবে ব্যক্তিগত পারফরম্যান্স দিয়ে নয়, দরকার হলো দলগত পারফরম্যান্স। যারা এতদিন ভালো খেলেছে, আশা করি তারা সেটা ধরে রাখবে। আর যারা ভালো খেলতে পারেনি, তারা এখন নিজেদের মেলে ধরবে। দলীয় প্রচেষ্টা দরকার। তাহলে ভালো ফল হবে। ভারতের মাটিতে ভারত খুব ভালো শক্তিশালী দল। আমরা স্কোয়াড দেখেছি। শক্তিশালী স্কোয়াড। তাদের বিপক্ষে আমরা দুই তিন দিন নয়, বরং পুরো পাঁচ দিন ভালো খেলতে চাই।

প্রশ্ন: আপনার ইনজুরির কী অবস্থা? কিপিংয়ের জন্য প্রস্তুত?
মুশফিকুর রহিম: আল্লাহর রহমতে আমার ইনজুরি অনেকটা কমে এসেছে। এখনো টেস্টের নয় দিন বাকি আছে। ওখানে গিয়ে একটা অনুশীলন ম্যাচ আছে। আশা করছি, ইনশাল্লাহ, তার আগেই আমি পুরো ফিট হয়ে যাব। এ ছাড়া একজন কিপারের আঙুলের ব্যথা থাকে। এটা ম্যানেজ করে খেলতে হয়। অনুশীলন ম্যাচটা খেলে ম্যাচ ফিটনেস ফিরে পেতে চাই।

প্রশ্ন: মুস্তাফিজকে নিয়ে কী বলবেন?
মুশফিকুর রহিম: মুস্তাফিজকে সব সময় দলে চাই। তিন ফরম্যাটের ক্রিকেটেই খেলতে পারে, সেটাই আমরা চাই। কিন্তু সে ইনজুরি থেকে ফিরেছে। তার যে সমস্যা, এটা ব্যক্তিগত। আমি টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে তাকে আমার দলে চাই। তবে ফিট মুস্তাফিজকে নিয়মিত পাওয়া বেশি দরকার। সামনে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজ আছে। এরপর চ্যাম্পিয়নস ট্রফি আছে, সেখানে তাকে আমাদের দরকার। এ ছাড়া ইনজুরি থেকে ফিরেই একজন বোলার সরাসরি টানা পাঁচদিন খেলতে পারে না। এটা কঠিন। আল্লাহ না করুক, টেস্ট খেলতে গিয়ে সে যদি দীর্ঘ মেয়াদি ইনজুরিতে পড়ে, সেটা খারাপ হবে। আমার মনে হয়, তাকে বিশ্রামে রেখে যে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, এটাই ঠিক সিদ্ধান্ত।

প্রশ্ন: ওপেনিংয়ে কি কোনো দুশ্চিন্তার ব্যাপার আছে? ইমরুল কায়েসের ইনজুরির কারণে…
মুশফিকুর রহিম: নাহ। আমার মনে হয় না। ইমরুল কিন্তু গত বছর অনেক রান করেছে। আর ইমরুল কিন্তু তামিমের পরই আমাদের অটোমেটিক পছন্দ। আমার মনে হয় তার কোনো রিপ্লেসমেন্ট আমাদের দলে নেই। ইমরুলের ইনজুরির পর সৌম্য দারুণ খেলেছে। এটা দারুণ ব্যাপার। আমাদের ভালো কিছু ব্যাকআপ খেলোয়াড় আছে।

প্রশ্ন: ভারতের কন্ডিশন নিয়ে তো সমস্যা হওয়ার কথা নয়?
মুশফিকুর রহিম: যেমনই কন্ডিশন হোক না কেন, আমরা সেভাবেই প্রস্তুতি নিয়েছি। আমাদের দলের খেলোয়াড়দের মধ্যে নানা রকম বৈচিত্র আছে। পেস বোলিং অলরাউন্ডার আছে, স্পিনিং অলরাউন্ডার আছে, ব্যাটিং গভীরতাও অনেক। সুতরাং যে কন্ডিশনই হোক, আমরা সেভাবেই খেলব। আমরা এখনো দুদিন ধরে ওই কন্ডিশনের মতো অনুশীলন করেছি। আমরা উপমহাদেশের। তারপরও আমাদের তুলনায় ওদের উইকেট ব্যাটিং সহায়ক হবে। তবে আমাদের ব্যাটসম্যানের কাজ কঠিন হবে। ভারতের বোলিং এখন অনেক ভালো। আর আমাদের বোলিংও ভালো। আমরা যদি ক্যাচগুলো ঠিকঠাক নিতে পারি তাহলে ভালো করব।

প্রশ্ন: এটাকে কি ঐতিহাসিক টেস্ট হিসেবে বিবেচনা করছেন?
মুশফিকুর রহিম: আমি একটু অবাকই হই! আমার কাছে এটা ঐতিহাসিক ধরনের কিছু মনে হয় না। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টেস্ট খেললে বেশি চাপ থাকে। কারণ তাদের কাছে হারলে অনেক ব্যাপার থাকে। ওখানে আমাদের অনেক কিছু করার আছে। পাঁচ বছর আগের চেয়ে এখন যাওয়া মানে আমাদের ভালো কিছু করার আছে। ভারতের মাটিতে আমরা কেমন খেলি, সেটা প্রমাণ করার আছে। এটা স্বাভাবিক একটা টেস্ট ম্যাচ। এমনভাবে পারফর্ম করতে চাই, যাতে ভারত আমাদের বারবার আমন্ত্রণ জানায়।

Check Also

রমজানের প্রথম দিনেই খুলে দেওয়া হবে চট্টগ্রামের আখতারুজ্জামান ফ্লাইওভারটি

আসন্ন রমজান মাসের শুরুতেই চট্টগ্রামে নবনির্মিত আখতারুজ্জামান ফ্লাইওভার তথা মুরাদপুর-লালখান বাজার ফ্লাইওভার যান চলাচলের জন্য …

Loading Facebook Comments ...

Leave a Reply